advertisement
আপনি পড়ছেন

ক্রমশই বৃদ্ধি পাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিষেক অনুষ্ঠান বয়কটকারীর সংখ্যা। আগামী ২০ জানুয়ারি ওয়াশিংটন কাপিটালে যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ গ্রহণ করবেন ট্রাম্প।

donald trump is being critisized for his comment on banning muslim to enter usa

বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়, অন্তত ৫০জন ডেমোক্রেট প্রতিনিধি শপথ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। মূলত অধিকার আন্দোলন কর্মী ও কংগ্রেসম্যান জন লুইসের সঙ্গে ট্রাম্পের বিবাদ থাকায় এসব ডেমোক্রেট সদস্য অনুষ্ঠানে যাচ্ছেন না।

শুক্রবার লুইস মন্তব্য করেছেন, 'মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার কথিত হস্তক্ষেপ থাকায় ট্রাম্পের জয় বৈধ নয়।' তার এই মন্তব্য নিয়ে শুরু হয় বিতর্ক।

এই মন্তব্যের পাল্টা জবাব দিয়ে ট্রাম্প টুইট করেন, 'শুধু কথা, কথা আর কথা; কাজের বেলায় নেই।'

ট্রাম্পের এমন মন্তব্যে দেয়া প্রতিক্রিয়া জানিয়ে নেকে বলছেন, কাজের যদি কোন প্রতীক থেকে থাকে তবে তা ৭৬ বছরের লুইস।'

মিনোসোটার প্রতিনিধি কিথ এলিসন এসব বিতর্কের জের ধরে টুইটারে মন্তব্য করেন, 'যে মানুষ বিভাজনের রাজনীতি ও ঘৃণা প্রচারে বিশ্বাস করে, তার অনুষ্ঠানে আমি কখনোই যাবো না।'

এই টুইট দেখে মেরিল্যান্ডের প্রতিনিধি অ্যান্থনি জি ব্রাউনও অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন না বলে ঘোষণা দেন। 

এদিকে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, শুক্রবার প্রেসিডেন্টের অভিষেক অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে অন্তত আট থেকে নয় লাখ মানুষ রাজধানীতে একত্রিত হবেন কিন্তু তারা উদযাপন করতে নাকি প্রতিবাদ জানাতে আসছেন, তা স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে না।

রোববার মার্টিন লুথার কিং জুনিয়রের জন্মবার্ষিকী পর্যন্ত অন্তত ৫০ জন প্রতিনিধি অনুষ্ঠিতব্য এই শপথ অনুষ্ঠান বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন। ধারণা করা হচ্ছে এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

এর আগে ১৯৭৩ সালে ৮০ জন আইনপ্রণেতা মার্কিন ৩৭তম প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সনের অভিষেক অনুষ্ঠান বর্জন করেছিলেন।