advertisement
আপনি পড়ছেন

চীন-আমেরিকা দ্বৈরথে নতুন মাত্রা যোগ করলো দেশ দুটির যুদ্ধ বিমান মাঝ আকাশে কাছাকাছি এসে। মার্কিন নেভি সূত্র বলছে, আলোচিত দক্ষিণ চিন সাগরের আকাশে বেশ কাছাকাছি এসেছিল চীন ও আমেরিকার যুদ্ধবিমান। এই বিমান দুটির রেঞ্চ ছিল তাদের প্রত্যেকের আক্রমণ সীমার মধ্যেই।

China us aircraft clash

মার্কিন নেভির পি-৩ বিমান ও চীনের কেজে-২০০ যুদ্ধবিমান দুটি কাছাকাছি অবস্থানে চলে এসেছিল। বিমানদুটি একে অপরের ১০০০ ফুটের মধ্যে চলে এসেছিল। দক্ষিণ চীন সাগরের নিকটবর্তী চীন ও ফিলিপিন্সের মাঝামাঝি স্থানে ঘটনাটি ঘটে।

গতবছরও এই দুটি দেশের যুদ্ধবিমান কাছাকাছি এসে উত্তেজনা ছড়িয়েছিল। গতকাল যুক্তরাষ্ট্র দাবি করেছে, মার্কিন এয়ারক্রাফটটি তাদের প্রাত্যাহিক মহড়ায় ছিল।

বিষয়টি নিয়ে চীনের সঙ্গে কূটনৈতিক আলোচনা করবে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে চীন এ বিষয়ে কোন আগ্রহ বা মন্তব্য করেনি। তবে কয়েকদিন আগেই পূর্ব এশিয়ায় উত্তেজনা সৃষ্টি করতে আমেরিকাকে দায়ী করেছিল চীন। চীনের পক্ষ থেকে ওয়াশিংটনকে সতর্কও করা হয়।

সাম্প্রতিক সময়টা চীন-যুক্তরাষ্ট্রের মোটেও ভাল যাচ্ছে না। বেইজিংয়ের সঙ্গে টোকিওর চলমান সংঘাতে আমেরিকা টোকিওকে সমর্থন দেবে এমন খবরে রেগে যায় চীন। এছাড়াও বছরের পর বছর ধরে চলে আসা কূটনৈতিক খারাপ সম্পর্ক তো আছেই। এমন সময়ে আকাশে শত্রুভাবাপন্ন দুই দেশের যুদ্ধবিমান কাছাকাছি চলে আসাটাও একটি বড় খবর।