advertisement
আপনি পড়ছেন

বর্তমান বিশ্বে অন্যতম শক্তিধর দুই রাষ্ট্র যুক্তরাষ্ট্র এবং চীন। কিন্তু কখনো ভেবে দেখেছেন কি, এই দুই রাষ্ট্রের মধ্যে যদি যুদ্ধ লেগে যায় তবে কে জিতবে সেই মহারণ? বিশ্বের সকল শান্তিপ্রিয় রাষ্ট্র হয়তো যুদ্ধ-বিগ্রহ চান না তারপরও সাম্প্রতিক সময়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া এবং চীন। চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রী ওয়াং ই মনে করেন চীন এবং যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে যুদ্ধ লাগলে কেউ জিতবে না!

usa china fight

একাধিক ইস্যুতে চীন-যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার পারষ্পরিক উত্তেজনা বাড়ছে। দুই শক্তিধর রাষ্ট্রের মধ্যে যুদ্ধেরও শঙ্কা করছেন অনেকে। তবে এই দুই দেশ যুদ্ধে জড়ালে কোনও পক্ষই জিতবে না বলে দাবি করেছেন চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রী ওয়াং ই। তিনি বলেন, 'যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে ডোনাল্ড ট্রাম্প নির্বাচিত হওয়ার পর ওয়াশিংটন ও বেজিংয়ের মধ্যে উত্তেজনা বেড়েছে। তবে চীন বরাবরই উত্তেজনা কমাতে আগ্রহী। এই দুই দেশ যুদ্ধে জড়ালে সার্বিক পরিস্থিতি অবনতি ঘটবে। মানবতার ক্ষতি হবে। '

সাম্প্রতিক সময়ে অস্ট্রেলিয়া সফরে যান চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রী। সেখানে তিনি এসব কথা বলেন। ট্রাম্প ক্ষমতা গ্রহণের আগে তাইওয়ানের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ফোনালাপ করেন বলে এ বিষয়ে কিছুটা মনক্ষুন্ন বেইজিংয়ের। এছাড়াও ট্রাম্প চীনা পণ্যের ওপর শুল্ক আরোপের কথাও বলেন। ওয়াং ই বলেন, 'চীন সবসময় বিশ্বের শান্তি স্থাপনে বিশ্বাসী। তারপরও যদি চীন ও আমেরিকার মধ্যে সংঘর্ষ লেগে যায় তাতে উভয় পক্ষই নিশ্চিতভাবে পরাজিত হবে।

তাইওয়ানকে চীনের ভূখণ্ডের 'অবিচ্ছেদ্য অংশ' মনে করে চীন। ওয়াশিংটনও এ বিষয়ে একমত ছিল। কিন্তু ট্রাম্প দায়িত্ব গ্রহণের আগেই চিরায়ত প্রথা ভেঙ্গে তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাই ইয়াং ওয়েনের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন। বিষয়টি মোটেও ভালোভাবে নেয়নি চীন। এরপরই দুই দেশের সম্পর্ক নতুন মোড় নেয়।