advertisement
আপনি দেখছেন

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ শহরের বন্দুকধারী সন্ত্রাসীর হামলায় প্রায় হারিয়েছেন ৪৯ জন মুসলমান। এই ঘটনায় বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা অল্পের জন্য বেঁচে গেছেন। তামিমরা বেঁচে গেলেও শেষ রক্ষা হয়নি আতা এলায়েনের। ৩৩ বছর বয়সী এলায়েন নিউজিল্যান্ডের জাতীয় ফুটসাল (ইনডোর ফুটবল) দলের খেলোয়াড়।

ata alayen newzeland

কুয়েতি বংশোদ্ভূত মুসলমান এলায়েন ছিলেন একজন গোলরক্ষক। সম্প্রতি তিনি সন্তানের বাবা হয়েছেন। তার ছবি খুঁজতে গেলে সন্তানসহ একাধিক ছবি পাওয়া যায়। ফলে সন্তান যে তার কলিজার টুকরা ছিল সেটি বলার অপেক্ষা রাখে না। তরে দুর্ভাগ্য আদরের সন্তানের উজ্জ্বল ভবিষ্যত দেখার আগেই এলায়ের পাড়ি জমান না ফেরার দেশে।

কুয়েতি বংশোভূত হলেও এলায়েন ছিলেন মূলত ফিলিস্তিনি। নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের কারিগরি শিল্পের জনপ্রিয় একজন তিনি। পাশাপাশি এলডব্লিউএ সফিউশন নাকে একটি কোম্পানির পরিচালক ছিলেন।

গত শুক্রবার হ্যাগলি পার্কে মসজিদ আল নূরে জুমার নামাজ আদায় করতে যাওয়া মুসল্লিদের ওপর নির্বিচারে গুলি চালায় সন্ত্রাসীরা। এতে প্রাণ হারান ৪৯ জন। সেই মসজিদে নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যেই গিয়েছিলেন তামিম-মুশফিকরা। মিনিট পাঁচেক আগে পৌছালেই সেখানে অন্যরকম ঘটনা ঘটতে পারতো।