advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 32 মিনিট আগে

ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের ইশতেহারকে ‘ভারত ভাগের ইশতেহাহার’ হিসেবে অভিহিত করেছে ক্ষমতাসীন বিজেপি। সেইসঙ্গে এই ইশতেহার বিদ্রোহীদের রক্ষা করবে বলেও মন্তব্য করেছেন বিজেপি নেতা ও ভারতের কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি।

arun jetly india

এর আগে মঙ্গলবার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, ইউপিএ চেয়ারপারসন সোনিয়া গান্ধীসহ দলের প্রথম সারির নেতাদের উপস্থিতিতে ইশতেহার প্রকাশ করেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী৷

এর পরই সংবাদ সম্মেলন ডেকে প্রতিক্রিয়া জানায় বিজেপি। ইশতেহারকে বিপজ্জনক ও বাস্তবায়ন যোগ্য নয় বলে মন্তব্য করেন অরুণ জেটলি৷

এনডিটিভি বলছে, ইশতেহারে জম্মু-কাশ্মিরের ক্ষেত্রে ‘আর্মস ফোর্সেস স্পেশাল পাওয়ার অ্যাক্ট’ পর্যালোচনার কথা বলা হয়েছে৷ এ ছাড়া পঞ্চায়েতে ১০ লক্ষ কর্মসংস্থান, ১০০ দিনের কাজের সময় বাড়িয়ে ১৫০ দিন করা, জিডিপির ৬ শতাংশ টাকা শিক্ষাক্ষেত্রে দেওয়া ইত্যাদি প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে।

অরুণ জেটলি বলেন, ‘কংগ্রেসের ইশতেহারে এমন সব কর্মসূচি রয়েছে যা দেশকে টুকরো করে দিতে পারে৷’

জম্মু-কাশ্মিরের ক্ষেত্রে আর্মস ফোর্সেস স্পেশাল পাওয়ার অ্যাক্ট পর্যালোচনার কথা বলা হয়েছে ভারতের প্রাচীন রাজনৈতিক দলটির পক্ষ থেকে। এর বিরোধিতা করে অরুণ জেটলি বলেন, ‘কংগ্রেসের ইশতেহারে মাওবাদীদের এবং জিহাদিদের (কাশ্মিরের স্বাধীনতাকামী) রক্ষা করার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে৷ পাশাপশি সন্ত্রাসবাদীরাই যেন নির্ধারণ করবে সেনাবাহিনী ঠিক করবে, না ভুল করবে তা বিচার করার। যা ভয়ংকর ইঙ্গিত৷’

তিনি বলেন, ‘কংগ্রেসের ইশতেহার অনুসারে এবার থেকে সন্ত্রাসবাদে যুক্ত হওয়া আর অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে না। যে দল এ কথা বলে তারা একটাও ভোট পাওয়ার যোগ্য নয়৷’

ভারতীয় অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, যে দলের ইশতেহারে বলা হয়, উপত্যাকা (কাশ্মির) থেকে সেনাবাহিনী ক্রমশ কমিয়ে আনা হবে সেই দলকে দেশের শাসনভার দেওয়া উচিত কি না ভেবে দেখা উচিত৷

sheikh mujib 2020