advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 32 মিনিট আগে

প্রথমবারের মতো জনগণের ভোটে নির্বাচিত মিশরের প্রেসিডেন্ট ড. মুহাম্মদ মুরসিকে উৎখাতের পেছনে ইসায়েলের জোরালো ভূমিকা ছিল। তথ্যটি ফাঁস করেছেন স্বয়ং ইসরায়েলি একজন শীর্ষ স্থানীয সেনা কর্মকর্তা।

president morsi

২০১৩ সালে এক সেনা অভ্যুত্থানে মুসলিম ব্রাদারহুড নেতা মুরসিকে ক্ষমতাচ্যুত করেন মিশরীয় সেনাপ্রধান আব্দুল ফাত্তাহ আল সিসি। এরপর থেকেই দেশটির প্রেসিডেন্ট পদ দখল করে আছেন সিসি। অপরদিকে ক্ষমতাচ্যুত মুরসিকে কারান্তরীণ করে বিচারের মুখোমুখি করা হয়।

স্থানীয় পত্রিকা ‘ম্যারিভ’-এ ‘দ্য আউটব্রেক অব দ্য জানুয়ারি রেভ্যুলেশন’ শিরোনামে লেখা এক নিবন্ধে ইসরায়েলের ওই সেনা কর্মকর্তা লিখেছেন, মিশরে মুসলিম ব্রদারহুড ক্ষমতায় আসায় ইসরায়েলের জন্য নিরাপত্তা ঝুঁকি তৈরি হয়। দেশটির প্রেসিডেন্ট মুহাম্মদ মুরসি যেভাবে দেশ শাসন করছিলেন, তাতে সেই ঝুঁকি মারাত্মক আকার ধারণ করে। তাই তাকে অপসারণ করা হয়।

তিনি আরো লিখেছেন, মুরসি প্রেসিডেন্ট হয়েই ইসরায়েলের সাথে সম্পাদিত শান্তি চুক্তি বাতিল করেন। এছাড়া সিনাই উপত্যকায়ও অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করা হয়। এতে ইসরায়েল ভীত হয়ে পড়ে। এ পরিস্থিতি মোকাবেলায় ইসরায়েল দ্রুত ও সক্রিয় কূটনৈতিক পদক্ষেপ গ্রহণ করে।

এই পদক্ষেপের অংশ হিসেবেই মুরসিকে ক্ষমতাচ্যুত করতে দেশটির সেনাপ্রধান আবদুল ফাত্তাহ সিসিকে কাজে লাগানো হয়। পরিকল্পনা অনুযায়ী তাকে পরে ক্ষমতায় আনা এবং টিকিয়ে রাখার ব্যবস্থা করা হয়। তবে এ ক্ষেত্রে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা কোনো আপত্তি করেননি।

sheikh mujib 2020