advertisement
আপনি দেখছেন

লন্ডনে ইকুয়েডরের দুতাবাস থেকে যেকোনো সময় বের করে দেয়া হতে পারে উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে। শুক্রবার উইকিলিকসের এক টুইট বার্তায় জানানো হয়, তাকে গ্রেপ্তার করতে ইতোমধ্যেই ইকুয়েডরের সাথে যুক্তরাজ্যের একটি চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে।

equidor

টুইটে বলা হয়, আইএনএ পেপারস অফশোর স্ক্যান্ডালকে কেন্দ্র করে যেকোনো সময় অ্যাসাঞ্জকে দূতাবাস থেকে বের করে দেয়া হতে পারে। এমন সম্ভাবনা উইকিলিকসকে ইকুয়েডরের একজন শীর্ষ কর্মকর্তা নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে অ্যাসাঞ্জ মার্কিন সামরিক বাহিনীর লাখ লাখ গোপন তথ্য ফাঁস করে বিশ্বব্যাপী আলোচনায় আসেন। এজন্য যুক্তরাষ্ট্র ইতোমধ্যেই তার বিরুদ্ধে ফৌজদারী বিচারের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

ইকুয়েডরের প্রেসিডেন্ট মোরেনো বলেন, অ্যাসাঞ্জ লন্ডনে তাদের দূতাবাসে অবস্থানকালে বেশ কয়েকবার শর্ত লঙ্ঘন করেছেন।

এদিকে মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক টাইমস জানায়, অ্যাসাঞ্জকে ধরিয়ে দেয়ার বিনিময়ে ইকুয়েডরের প্রেসিডেন্ট যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ঋণ মওকুফ চেয়েছেন।

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালে যৌন হয়রানির মামলায় সুইডেনে প্রত্যাবর্তনের আশঙ্কায় লন্ডনে ইকুয়েডরের দূতাবাসে আশ্রয় নেন অ্যাসাঞ্জ। গত সাত বছর ধরে তিনি সেখানেই আছেন।