আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 23 মিনিট আগে

মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের প্রভাব ঠেকাতে আমেরিকার তত্ত্বাবধানে আঞ্চলিক মিত্রদের নিয়ে সামরিক জোট ন্যাটোর স্টাইলে যে একটি জোট গঠনের প্রক্রিয়া চলছে, তাতে থাকবে না মিশর। নির্ভরযোগ্য কয়েকটি সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর দিয়েছে।

saudi prince trump

এ ধরনের জোট গঠন হলে মুসলিম বিশ্বে মারাত্মক অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি হবে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সে আজ বৃহস্পতিবার প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে ইরানি গণমাধ্যম পার্সটুডে বলছে, সম্ভাব্য এ জোট থেকে নিজেকে প্রত্যাহারের কথা আমেরিকা ও মধ্যপ্রাচ্যের কৌশলগত মিত্রদেরকে জানিয়েও দিয়েছে কায়রো।

আগামী রোববার সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদে জোট গঠনের বিষয়ে নতুন একটি বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। এর আগে মিশর জোটে যোগ দেয়া নিয়ে নিজের অনীহার কথা জানিয়েছে।

চারটি সূত্রের মধ্যে একটি সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদের ওই বৈঠকে যোগ দেয়ার জন্য মিশর কোনো প্রতিনিধি দল পাঠায়নি।

সূত্রগুলো বলেছেন, সম্ভাব্য এ জোটের আন্তরিকতা নিয়ে মিশরের প্রশ্ন রয়েছে, পাশাপাশি মুসলিম বিশ্বে সম্ভাব্য নেতিবাচক প্রতিক্রিয়ার বিষয়টিও বিবেচনায় নিয়েছে কায়রো।

তবে আরকেটি সূত্র বলেছেন, মিশরের প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসি মনে করছেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দ্বিতীয় দফায় পাস করার বিষয়ে সন্দিহান তিনি। ফলে নতুন কেউ আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হলে তিনি এ জোট ভেঙে দেবেন। সে কারণে জোটের ভবিষ্যত চিন্তা করে মিশর এতে যোগ না দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স প্রতিবেদনে মন্তব্য করে বলেছে, মিশরের এই অবস্থান ট্রাম্প প্রশাসনের জন্য বিপর্যয়কর।

অবশ্য প্রকাশিত প্রতিবেদনের ব্যাপারে মিশরের কর্মকর্তারা কোনো মন্তব্য করেননি বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।