advertisement
আপনি দেখছেন

বিরোধী দলগুলোর তীব্র আপত্তি থাকা সত্ত্বেও বিতর্কিত মুসলিমবিরোধী নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলটি ভারতের লোকসভায় পাস করিয়ে নিল বিজেপি সরকার। সোমবার দেশটির কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বিতর্কিত এই বিলটি পেশ করেন। পরে ৯০ মিনিট ধরে চলা উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ের পর ২৯৩-৮২ ভোটের ব্যবধানে এটি পাস হয়।

citizenship pass loksabhaভারতের লোকসভায় পাস হলো ‘মুসলিমবিরোধী’ নাগরিকত্ব বিল

যুক্তরাজ্য ভিত্তিক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, আইনে পরিণত করতে হলে বিলটিকে এখন সংসদের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভা থেকেও পাশ করিয়ে নিতে হবে। তারপরই বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে ভারতে পাড়ি জমানো অমুসলিম শরণার্থীদের দেশটির নাগরিকত্ব পাওয়া সহজ হয়ে যাবে।

এদিন লোকসভায় অমিত শাহ বলেন, অমুসলিমদের ক্ষেত্রে ভারতীয় নাগরিকত্ব পেতে, কোনো রেশন কার্ডের প্রয়োজন হবে না। যেদিন থেকে ভারতে আসবে, সেদিন থেকেই তারা নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করতে পারবে।

তিনি বলেন, আবেদন করার পর যদি কারো বিরুদ্ধে অনুপ্রবেশের অভিযোগ দায়ের করা হয়, তাহলে নাগরিকত্ব পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাঁর ওপর থেকে যাবতীয় অভিযোগ প্রত্যাহার করে নেয়া হবে। নাগরিকত্ব পাওয়ার পর কারো বিরুদ্ধে অনুপ্রবেশ সংক্রান্ত কোনো মামলা আর থাকবে না।

প্রসঙ্গত, ১৯৫৫ সালে পাশ হওয়া নাগরিকত্ব আইনে উল্লেখ আছে, অন্য দেশ থেকে ভারতে আসা কেউ যদি নাগরিকত্ব চায় সেক্ষেত্রে তাকে কমপক্ষে ১১ বছর এ দেশে বসবাস করতে হবে। পাশাপাশি এর পক্ষে যথেষ্ট প্রমাণ ও নথিপত্র উপস্থাপন করতে হবে।

কিন্তু নতুন করে সংশোধন হওয়া এ বিলটিতে বলা হয়েছে, ভারতে টানা ৫ বছর ধরে বসবাস করা অমুসলিমরা নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য অবেদন করতে পারবেন।

এদিকে বিজেপি সরকারের তীব্র সমালোচনা করে পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, যদি সব সম্প্রদায়ের মানুষকে নাগরিকত্ব দেয়া হয়, তাহলে সেটা মেনে নেয়া যায়। কিন্তু যদি ধর্মের ভিত্তিতে বৈষম্য করা হয়, তাহলে এর বিরুদ্ধে আন্দোলন করা হবে।