advertisement
আপনি দেখছেন

মুসলিমবিরোধী নাগরিকত্ব বিলের মাধ্যমে উত্তর-পূর্ব ভারতের পরিচিতি মুছে ফেলার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন সাবেক কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। বুধবার এক টুইট বার্তায় নরেন্দ্র মোদি ও অমিত শাহ সরকারকে দায়ী করে তিনি এ অভিযোগ করেন।

rahul gandhi 2সাবেক কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী

রাহুল গান্ধী বলেন, নাগরিকত্ব বিল উত্তর-পূর্ব ভারতের জনজীবন ও সেখানকার মানুষের ওপর হামলা। এর মধ্য দিয়ে বিজেপি সরকার ভারতীয় মানুষদের মধ্যে ধর্মীয় বিভাজন সৃষ্টি করছে।

এর আগে বিরোধী দলগুলোর তীব্র আপত্তি থাকা সত্ত্বেও বিতর্কিত মুসলিমবিরোধী নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলটি ভারতের লোকসভায় পাস করিয়ে নেয় বিজেপি সরকার। সোমবার দেশটির কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বিতর্কিত এই বিলটি পেশ করেন। পরে ৯০ মিনিট ধরে চলা উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ের পর ২৯৩-৮২ ভোটের ব্যবধানে বিলটি পাস হয়।

প্রসঙ্গত, ১৯৫৫ সালে পাশ হওয়া নাগরিকত্ব আইনে উল্লেখ আছে, অন্য দেশ থেকে ভারতে আসা কেউ যদি নাগরিকত্ব চায় সেক্ষেত্রে তাকে কমপক্ষে ১১ বছর এ দেশে বসবাস করতে হবে। পাশাপাশি এর পক্ষে যথেষ্ট প্রমাণ ও নথিপত্র উপস্থাপন করতে হবে।

কিন্তু নতুন করে সংশোধন হওয়া এ বিলটিতে বলা হয়েছে, ভারতে টানা ৫ বছর ধরে বসবাস করা অমুসলিমরা নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য অবেদন করতে পারবেন।

এদিকে বিজেপি সরকারের তীব্র সমালোচনা করে পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, যদি সব সম্প্রদায়ের মানুষকে নাগরিকত্ব দেয়া হয়, তাহলে সেটা মেনে নেয়া যায়। কিন্তু যদি ধর্মের ভিত্তিতে বৈষম্য করা হয়, তাহলে এর বিরুদ্ধে আন্দোলন করা হবে।