advertisement
আপনি দেখছেন

ভারতের নতুন নাগরিকত্ব আইনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে স্থগিত রাখার আবেদনের শুনানি পিছিয়েছে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন কার্যকরের ওপর স্থগিতাদেশ না দেয়া হলেও বিতর্কিত আইনটির বিরুদ্ধে ৬০টি পিটিশনের প্রেক্ষিতে চলা শুনানিতে জানুয়ারি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের মধ্যে বিজেপি সরকারকে জবাব দেওয়ার জন্য নোটিশ দেয়া হয়েছে।

nrc india unrestবিতর্কিত নাগরিক আইনের প্রতিবাদে কাপছে ভারত

আগামী বছরের ২২ জানুয়ারি এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে।

নতুন নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরোধিতা করে এর প্রতিবাদে উত্তাল হয়ে উঠেছে পুরো ভারত। আইনের বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করে শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হয় বিরোধীরা। প্রায় ৬০টি আবেদন জমা পড়ে ভারতের সুপ্রিম কোর্টে।

বুধবার ভারতের সুপ্রিম কোর্টের তিন বিচারপতির বেঞ্চ ওই আইনের প্রয়োগ স্থগিত রাখার আবেদন খারিজ করে দিয়ে বলেন, আগামী ২২ জানুয়ারি এই আইনটি স্থগিত রাখার বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

গত ৪ ডিসেম্বর নাগরিকত্ব সংশোধন বিল অনুমোদন দেয় দেশটির মন্ত্রিসভা। এরপর তা সংসদের উভয়কক্ষে পাস হয়।

প্রসঙ্গত, ১৯৫৫ সালে পাশ হওয়া নাগরিকত্ব আইনে উল্লেখ ছিল, অন্য দেশ থেকে ভারতে আসা কেউ যদি নাগরিকত্ব চায় সেক্ষেত্রে তাকে কমপক্ষে ১১ বছর এ দেশে বসবাস করতে হবে। সেইসঙ্গে এর পক্ষে যথেষ্ট প্রমাণ ও নথিপত্র উপস্থাপন করতে হবে। কিন্তু সংশোধিত নতুন আইনে ভারতে টানা ৫ বছর ধরে থাকা অমুসলিমদের নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য অবেদন করতে পারবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।