advertisement
আপনি দেখছেন

তুরস্কের পূর্বাঞ্চলে শক্তিশালী ভূমিকম্পে কমপক্ষে ১৯ জন নিহত হয়েছেন, আহত হয়েছেন আরো সাড়ে ছয় শতাধিক মানুষ। দেশটি ছাড়াও এ ভূমিকম্পে প্রতিবেশী সিরিয়া, লেবানন ও ইরানে কেঁপে উঠেছে। তবে এসব দেশে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। স্থানীয় সময় শক্রবার রাত ৮টা ৫৫ মিনিটে ভূমিকম্পটি আঘাত হানে, রিখটার স্কেলে যার মাত্রা ছিল ৬ দশমিক ৮।

earthquake in turkey

বিষয়টি নিশ্চিত করে তুর্কি কর্মকর্তারা জানান, দেশের পূর্বাঞ্চলে আঘাত হানা এ ভূমিকম্পে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এলাজিগ প্রদেশের সিভরিস শহর। সেখানকার অসংখ্য ভবন ধসে পড়েছে, হতাহতের সংখ্যাও এই শহরে বেশি। স্থানীয় বাসিন্দারা আতঙ্কে বাড়িঘর ছেড়ে রাস্তায় নেমে আসেন।

তুরস্কের দুর্যোগ ও জরুরি ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ (এএফএডি) জানায়, শক্তিশালী ভূমিকম্পের পরপরই অন্তত ৬০ বার পরাঘাত (আফটারশক) অনুভূত হয়েছে। বিভিন্ন এলাকায় উদ্ধার কাজ এখনো শেষ না হওয়ায় হতাহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এলাজিগের গভর্নর জানান, ভূমিকম্পে তার শহরেই ১৩ জনের বেশি মারা গেছেন, আহত হয়েছেন আরো ৪০৩ জন। প্রতিবেশী মালাতিয়ায় আরও ছয় জনের মৃত্যু হয়েছে।

earthquake in turkey 1

তুর্কি টেলিভিশনগুলোতে দেখা যায়, ভূমিকম্পে আতঙ্কিত লোকজন বাড়িঘর ছেড়ে রাস্তায় ও খোলা জায়গায় অবস্থান করছেন। এ সময় কোনো কোনো ভবনের ছাদে আগুন জ্বলতেও দেখা যায়। এ ভূমিকম্পে হতাহতের প্রতি সমবেদনা জানানোর পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তায় দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, ভৌগোলিক কারণে তুরস্কে প্রায়ই ভূমিকম্প আঘাত হানে। এর আগে দেশটিতে ১৯৯৯ সালে সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হেনেছিল, তাতে পশ্চিমাঞ্চলীয় ইজমিত শহরে প্রায় ১৭ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়।