advertisement
আপনি দেখছেন

চীনে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী কোভিড-১৯ ভাইরাস (করোনাভাইরাস) যখন প্রায় গোটা বিশ্বে আতঙ্ক ছড়িয়েছে তখন পশ্চিম অফ্রিকার দেশ নাইজেরিয়ায় মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়েছে আরেক ভাইরাস জ্বর ‘লাসসা'। ইতোমধ্যে এ জ্বরে আক্রান্ত হয়ে দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ৭০ জনের। সংক্রমিত হয়েছেন আরো ৪৭২ জন।

lassa fever in naigeria 2

বৃহস্পতিবার নাইজেরিয়ার দ্য ন্যাশনাল সেন্টার ফর ডিজিস কন্ট্রোলের (এনসিডিসি) বরাত দিয়ে এ তথ্য প্রকাশ করে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশটির অন্ডো, কাদুনা ও ডেলটা প্রদেশে লাসসা জ্বর ভয়াবহ আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। এতে এখন পর্যন্ত ৭০ জনের মৃত্যু এবং ৪৭২ জনের আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আক্রান্তদের মধ্যে তিনজন মেডিকেল স্বাস্থ্যকর্মীও আছেন।

lassa fever in naigeria

লাসসা জ্বর কি:

চিকিৎসকরা জানান, লাসসা জ্বর হলো একটি ভাইরাস জ্বর। যা খাবার, মল-মূত্র ও ঘরে ব্যবহৃত জিনিসপত্রের মাধ্যমে মানবদেহে ছড়ায়। তবে ৮০ শতাংশ ক্ষেত্রেই এই জ্বর প্রাণঘাতী নয়।

লাসসা জ্বরের লক্ষণ:

চিকিৎসকরা জানান, লাসসা জ্বরে আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরের তাপমাত্রা অনেক বেড়ে যায়। পাশাপাশি মাথা ও মাংশপেশিতে ব্যথা অনুভূত হওয়াসহ মুখে ঘা ও ত্বকের নিচে রক্তক্ষরণ হয়। অনেক সময় এ জ্বরে আক্রান্ত হলে কিডনিও নষ্ট হয়ে যেতে পারে। তাই সময়মতো এই জ্বরের চিকিৎসা না নিলে আক্রান্ত ব্যক্তির মৃত্যুও হতে পারে।

লাসসা জ্বরের চিকিৎসা:

সাধারণত এ জ্বরে আক্রান্ত ব্যক্তিকে ৬ থেকে ২১ দিন পর্যন্ত অন্যদের থেকে আলাদা করে রাখা হয়। কারণ লাসসা জ্বরে আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে গেলে এর ভাইরাসটি অন্যদের দেহে ছড়ানোর সম্ভাবনা থাকে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে, লাসসা জ্বরে আক্রান্ত হলে অবহেলা না করে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। রিভাভিরিন এন্টিভাইরাল নামে একটি প্রতিষেধক এই জ্বরে ভালো কাজ করে। তবে সময়মতো চিকিৎসা না নিলে এটি প্রাণঘাতী হতে পারে।