advertisement
আপনি দেখছেন

চীনে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচতে এবার গোটা হুবেই প্রদেশ অবরুদ্ধ ঘোষণা করলো প্রশাসন। এর আগে ভাইরাসটির উৎপত্তিস্থল উহানসহ বেশ কয়েকটি শহর অবরুদ্ধ করা হয়েছিল। তবে এবারই প্রথম কোনো প্রদেশ অবরুদ্ধ ঘোষণা করা হলো। ফলে সেখানে বসবাসরত অন্তত ৫ কোটি ৮০ লাখ বাসিন্দা বিশেষ অনুমতি ছাড়া বাইরে যেতে পারবেন না।

china corona panic

রোববার চীন সরকার এক বিবৃতি প্রকাশ করেছে। সেখানে উল্লেখ করা হয়, হুবেই প্রদেশে সব ধরনের ব্যবসা-বাণিজ্য অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ থাকবে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া রাস্তায় গাড়ি বের করতে দেয়া হবে না। তবে পুলিশের গাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স, জরুরি পণ্য পরিবহনসহ অনুমোদিত গাড়িগুলো চলাচল করতে পারবে।

বিবৃতিতে আরো উল্লেখ করা হয়, জরুরি প্রয়োজনে যেসব দোকান খোলা থাকবে, সেখানে ভিড় করা যাবে না। জ্বর-জাতীয় অসুখের লক্ষণ নিয়ে ফার্মেসিতে গেলে সেখানে নাম, ফোন নম্বর, সর্বশেষ ভ্রমণের তারিখ ও স্থানসহ প্রয়োজনীয় সব ধরনের তথ্য লিখে রাখতে হবে। কোথাও করোনায় আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেলে তাকে ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইন করে রাখা হবে। প্রশাসনের বিশেষ অনুমতি ছাড়া কোনো কলকারখানা চালু করা যাবে না।

এর আগে দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় ঝেজিয়াং প্রদেশ কর্তৃপক্ষ সেখানে সব ধরনের পাবলিক ভেন্যু বন্ধ করে দিয়েছে। নিষিদ্ধ করা হয়েছে শেষকৃত্য-বিয়েসহ যেকোনো ধরনের অনুষ্ঠান। এমনকি মানুষ ঘরের বাইরে কতবার যেতে পারবেন, সে সংখ্যাও সরকারের পক্ষ থেকে নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া ওয়েনঝৌ, হ্যাংঝৌ, নিংবো ও তাইঝৌ শহরের বাসিন্দাদের জন্য এক ধরনের ‘পাসপোর্ট’ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। যা দেখিয়ে দুইদিন অন্তর অন্তর একবার করে কেনাকাটা করতে ঘরের বাইরে যাওয়া যাবে।

এদিকে, চীনে ইতোমধ্যে মহামারি আকার ধারণ করা করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা আরো বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে আরো ১০৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১৭৭৪ জনে। সোমবার চীনের স্বাস্থ্য বিভাগের বরাত দিয়ে এ খবর প্রকাশ করেছে চায়না গ্লোবাল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক (সিজিটিএন)।

what kind of effect does corona virus

খবরে বলা হয়, রোববার শুধু হুবেই প্রদেশে আরো ১০০ জন মারা গেছে। এছাড়া হেনান প্রদেশে তিনজন এবং গুয়াংডং প্রদেশে দুইজন কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। পাশাপাশি নতুন করে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছে আরো ২ হাজার ৪৮ জন। এ নিয়ে শুধু চীনে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৭০ হাজার ৫৪৮ জন।

চীনের বাইরে বিশ্বব্যাপী এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে ছয়জন মৃত্যুবরণ করেছে। এদের মধ্যে হংকংয়ে দুইজন, ফিলিপাইন, জাপান, ফ্রান্স ও তাইওয়ানে একজন করে মারা গেছে। এছাড়া আক্রান্ত হয়েছে ৭৭৮ জন।

বাংলাদেশের মূল ভূখণ্ডে এখন পর্যন্ত এ ভাইরাসের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া না গেলেও সিঙ্গাপুরে পাঁচ বাংলাদেশি প্রবাসী আক্রান্ত অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। তারা সবাই দেশটির সেলটার অ্যারোস্পেস হাইটস কনস্ট্রাকশন সাইটের কর্মী।

sheikh mujib 2020