advertisement
আপনি দেখছেন

ভারতের বিতর্কিত সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনকে (সিএএ) কেন্দ্র করে দেশটির রাজধানী নয়া দিল্লিতে যে সংহিসতা চালানো হয়েছে, তাতে সর্বশেষ খবর অনুযায়ী ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন দুই শতাধিক মানুষ।

protest rally dhaka

খোদ ভারতীয় গণমাধ্যম বলছে, ক্ষমতাসীন হিন্দুত্ববাদী দল বিজেপির সমর্থকরা এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মুসলমানদের বাড়িঘরে আগুন দিয়েছে। লুটপাট চালিয়েছে। তাদের নির্যাতন থেকে রক্ষা পায়নি গর্ভবর্তী নারী কিংবা সন্তান হারানো শোকার্ত পিতা।

নৃশংস ওই সহিংসতার প্রতিবাদে আজ শুক্রবার জুমার নামাজের পর রাজধানী ঢাকায় বিক্ষোভ হয়েছে। বিক্ষোভ থেকে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আসন্ন বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ বাতিলের দাবি তোলা হয়েছে।

জুমার নামাজ শেষে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম এলাকায় বিক্ষোভ করেছেন কয়েক হাজার মুসল্লি। সমমনা ইসলামী দলগুলোর ব্যানারে মসজিদের উত্তর গেটে প্রথমে বিক্ষোভ সমাবেশ হয়। সমাবেশ শেষে তারা মিছিল বের করেন।

বিক্ষোভ মিছিল উপলক্ষে জুমার নামাজের আগেই বায়তুল মোকাররম মসজিদে ব্যাপক মুসল্লির সমাগম হয়। পুরো এলাকায় পুলিশের উপস্থিতিও ছিল চোখে পড়ার মতো।

নামাজ শেষে কয়েক হাজার মুসল্লি সমাবেশে যোগ দেন। বিভিন্ন ইসলামী দলসমূহের নেতারা এ সময় বক্তব্য রাখেন। বক্তারা বলেন, ভারতে মুসলিমদের নির্মমভাবে হত্যা করা হচ্ছে।

তাদের ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেয়া হচ্ছে। মা-বোনদেরকে নির্যাতন করা হচ্ছে। মুসলিম হিসেবে আমরা তা মেনে নিতে পারি না। এ নিয়ে সরকারের মাথা ব্যথা না থাকলেও আমাদের মাথা ব্যথা আছে। কারণ আমরা মুসলমান। মুসলিম হয়ে মুসলিমদের ওপর এমন নির্যাতন সহ্য করা যায় না।

তারা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন অসাম্প্রদায়িক। আমাদের দেশ অসাম্প্রদায়িক। এখানে আমরা মুসলিম হিন্দু বোদ্ধ খ্রিস্টান একসঙ্গে বাস করি। আর মোদি হলো একজন উগ্রপন্থী লোক। সে সাম্প্রদায়িক এবং খুনি। সুতরাং মুজিববর্ষে তার মতো খুনি সাম্প্রদায়িক এবং উগ্রবাদীকে বাংলাদেশে ঢুকতে দেয়া হবে না। তার আমন্ত্রণ পত্র প্রত্যাহার করতে হবে।

এ সময় তারা বিমানবন্দর ঘেরাও করার ঘোষণা দেন। বক্তারা মুসলিম হত্যার প্রতিবাদে ভারতের সব পণ্য বর্জন করার ঘোষণাও দেন।

খোদ ভারতীয় গণমাধ্যম বলছে, ‘হিন্দুয়োঁ কা হিন্দুস্তান’, ‘জয় শ্রীরাম’- এসব স্লোগান দিয়ে সংখ্যালঘু মুসলিমদের বাড়িঘর, দোকানপাট ও মসজিদে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনা ঘটানো হচ্ছে।

ভারতের ঘটনা নিয়ে সরব হয়েছে আন্তর্জাতিক মহল। মার্কিন ধর্ম সংক্রান্ত কমিশন বলছে, ভারতে মুসলিমদের টার্গেট করে হামলা করা হচ্ছে।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোয়ান দিল্লিতে মুসলিমদের বিরুদ্ধে ‘গণহত্যার’ অভিযোগ তুলেছেন। সহিংসতার নিন্দা জানিয়েছে মুসলিম দেশগুলোর সংগঠন ওআইসি।