advertisement
আপনি দেখছেন

ভারতের বিতর্কিত নাগরিকত্ব আইনকে (সিএএ) কেন্দ্র করে দেশটির রাজধানী দিল্লিতে সহিংসতায় আহত এক যুবককে ভারতের জাতীয় সংগীত গাইতে বাধ্য করে পুলিশ। পরে গতকাল শুক্রবার ফাইজান নামের ওই যুবকের মৃত্যু হয়েছে। পরিবারের অভিযোগ, পুলিশের নির্যাতনেই তার মৃত্যু হয়েছে।

death of a youth forced to sing national anthem on streets of delhi

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। সেখানে দেখা যায়, রাস্তার ওপর আহত অবস্থায় শুয়ে আছে পাঁচ যুবক। তাদেরকে জাতীয় সংগীত গাইতে বাধ্য করছেন একজন পুলিশ সদস্য। আরেক পুলিশ সদস্য করছেন ভিডিও। তাদের লাঠি দিয়ে খোঁচা দিয়ে বার বার জাতীয় সংগীত গাওয়ার জন্য বলা হচ্ছিল। একজনের মাথা ও হাত থেকে রক্ত পড়তে দেখা গেছে।

গত রোববার করা ওই ভিডিওটি মঙ্গলবার শাহিন বাগ অফিসিয়াল নামে এক টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে পোস্ট করা হয়।

ভিডিওর ওই পাঁচজনের একজন ছিলেন ফাইজান। তিনি উত্তর-পূর্ব দিল্লির বাসিন্দা।

তার পরিবার অভিযোগ করে জানায়, ফাইজানকে বেধড়ক পেটানো হয়েছে। আহত অবস্থায় তাকে তেগ বাহাদুর হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে তার কোনো চিকিৎসা দেয়া হয়নি। তখন ফাইজানের মাথা দিয়ে রক্ত পড়ছিল এবং তার চোয়াল ভেঙে গিয়েছিল। তাকে চিকিৎসা না দিয়ে বরং সেখান থেকে উঠিয়ে নিয়ে জ্যোতি নগর থানায় নিয়ে দুই দিন আটকে রাখা হয়। অতিরিক্ত নির্যাতনের ফলে মঙ্গলবার তার মৃত্যু হলে তার লাশটি বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।

ফাইজানের দাদা বলেন, সে স্থানীয় একটি মাংসের দোকানে কাজ করতো। রোববার দুপুরে এক শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে যোগ দিতে গিয়েছিল সে। পুলিশ সেখানে আচমকা টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করলে সেখানে থেকে সরে যায় ফাইজান। পরে কিছু দূর যাওয়ার পরই পুলিশ তাকেসহ অন্যদের বেধড়ক পেটানো শুরু করে। এতেই সে গুরুতর আহত হয়।

তবে এ বিষয়ে দিল্লি পুলিশের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

sheikh mujib 2020