advertisement
আপনি দেখছেন

আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহার ও ওই অঞ্চলে শান্তি ফিরিয়ে আনতে গতকাল শনিবার ঐতিহাসিক এক চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবান। চুক্তিতে আফগানিস্তানে বন্দি তালেবান সদস্যদের মুক্তির বিষয়টিও উল্লেখ ছিল। তবে চুক্তির এই অংশটি মেনে নিতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি। আজ রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি। খবর রয়টার্স।

afghan president ghani

স্বাক্ষরিত চুক্তিতে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পাশাপাশি বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবানরা যৌথভাবে আফগানিস্তানে অন্তত ৫ হাজার তালেবান সদস্য ও রাজনৈতিক নেতাদের বন্দিদশা থেকে মুক্তির জন্য কাজ করে যাবে।

আশরাফ ঘানি বলেন, আফগান সরকার ও সাধারণ নাগরিকদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে ৫ হাজার তালেবানের বন্দি অবস্থা থেকে মুক্তি দেয়া সম্ভব নয়। তাছাড়া এ বিষয়ে সরকার কোনো প্রতিশ্রুতিও দেয়নি। আফগানিস্তানে কাকে বন্দিদশা থেকে মুক্তি দেয়া হবে সে ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র সিদ্ধান্ত নেয়ার কোনো এখতিয়ার রাখে না। তাই চুক্তিতে এ বিষয়ে দুই পক্ষ যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা মেনে নিতে পারবে না আফগান সরকার।

উল্লেখ্য, ২০০১ সালে আফগানিস্তানে তৎকালীন তালেবান সরকারকে উৎখাতে আগ্রাসন চালায় মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোট। এরপর থেকেই সেখানে মার্কিন সেনা মোতায়েন রেখেছে দেশটি। প্রায় দুই দশক ধরে মার্কিন বাহিনীর বিভিন্ন হামলায় নিহত হয়েছে কয়েক লাখ সাধারণ নাগরিক।

এদিকে, দীর্ঘদিনের এই সংকট সমাধানের আগমুহূর্তে আশায় বুক বেঁধেছেন আফগানিস্তানের মানুষ। তাদের বিশ্বাস, আফগানিস্তানে আর কোনো সহিংস ঘটনা ঘটবে না। এই উদ্যোগকে তারা পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে স্বাগতও জানিয়েছেন।

চুক্তি অনুযায়ী, আগামী ১৩৫ দিনের মধ্যে আফগানিস্তানে থাকা ১৩ হাজার মার্কিন সেনার মধ্যে ৮ হাজার ৬০০ সেনা প্রত্যাহার করে নেবে যুক্তরাষ্ট্র।

sheikh mujib 2020