advertisement
আপনি দেখছেন

দিল্লি নির্ভয়া ধর্ষণকাণ্ডে জড়িতদের ফাঁসি ফের পিছিয়ে গেল। সোমবার দেশটির রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের কাছে প্রাণভিক্ষার আর্জি জানিয়েছে পবন গুপ্ত নামের এক দণ্ডিত। সেই আবেদন এখন রাষ্ট্রপতির বিবেচনাধীন। এই অবস্থায় পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ফাঁসি স্থগিত রাখার নির্দেশ দিয়েছে দিল্লির একটি আদালত।

nyrbhaya rape case delhi

ভারতীয় গণমাধ্যম বলছে, সোমবারই সুপ্রিম কোর্ট থেকে খালি হাতে ফিরতে হয়েছে পবন গুপ্তকে। মৃত্যুদণ্ডের নির্দেশ বাতিল করে তা যাবজ্জীবন কারাবাসে পরিণত করতে আদালতে আবেদন জানিয়েছিল সে। ২০১২ সালে ঘটনার সময় সে নাবালক ছিল বলে আদালতে দাবি করেছিল পবন।

কিন্তু তার সেই আর্জি খারিজ করে দেয় দেশটির শীর্ষ আদালত। এর পর তড়িঘড়ি রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আর্জি জানায় পবন। সেই তথ্য জানিয়ে ফের পাতিয়ালা হাউস কোর্টের দ্বারস্থ হন পবনের আইনজীবী। রাষ্ট্রপতির সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত ফাঁসিতে স্থগিতাদেশ দেওয়ার আর্জি জানান তিনি। তাতেই অনির্দিষ্টকালের জন্য ফাঁসি পিছিয়ে দেন অতিরিক্ত দায়রা আদালতের বিচারপতি ধর্মেন্দ্র রানা।

এ সময় বিচারপতি বলেন, ‘আসামির প্রাণভিক্ষার আর্জি নিয়ে যখন কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি, সেই অবস্থায় ফাঁসি কার্যকর করা যায় না। তাই ৩ মার্চ সকাল ৬টায় যে ফাঁসি হওয়ার কথা ছিল, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত তা স্থগিত রাখা হলো।’

উল্লেখ্য, ২০১২ সালে রাজধানী দিল্লিতে চলন্ত বাসে ২৩ বছরের নির্ভয়াকে ধর্ষণ ও খুনের অপরাধে সুপ্রিম কোর্ট মৃত্যুদণ্ড দেয় মুকেশ সিংহ, বিনয় শর্মা, অক্ষয় কুমার ও পবন গুপ্তকে।

রায় অনুযায়ী গত ২২ জানুয়ারি ফাঁসি হওয়ার কথা ছিল তাদের। কিন্তু দণ্ডিতরা একে একে প্রাণভিক্ষার আর্জি জানাতে শুরু করলে পরে তা পিছিয়ে ১ ফেব্রুয়ারি করা হয়। শেষ মেশ গত ১৭ ফেব্রুয়ারি নতুন করে মৃত্যুদণ্ডের পরোয়ানা জারি করে দিল্লি হাইকোর্ট। তাতে ৩ মার্চ একসঙ্গে তাদের ফাঁসিতে ঝোলানোর নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু আবারো পিছিয়ে গেল ফাঁসি কার্যকর।