advertisement
আপনি দেখছেন

করোনাভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে প্রত্যেক দেশই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিচ্ছে। কাতার জানিয়েছে, বাংলাদেশসহ ১৪ দেশের নাগরিকদের সে দেশে প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে তারা। অন্য দেশগুলো হলো- চীন, মিসর, ভারত, পাকিস্তান, ইরান, ইরাক, লেবানন, নেপাল, ফিলিপাইন, দক্ষিণ কোরিয়া, শ্রীলঙ্কা, সিরিয়া ও থাইল্যান্ড। করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে তাদের এমন আগাম সিদ্ধান্ত। ৯ মার্চ থেকে কার্যকর হয়ে এই নির্দেশ চলবে অনির্দিষ্টকাল পর্যন্ত।

qatar corona

কাতারে অন্তত ২০ জনের শরীরে এই ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে, তবে একজনও  মারা যায়নি। কিন্তু তাদের পাশের দেশ ইরানের অবস্থা ভয়াবহ। সেখানে সরকারি হিসেবেই মারা গেছে অন্তত ২০০ জন। তাই কাতার এখনই সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিচ্ছে, যাতে এই ভাইরাস দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে না পারে। সতর্কতার অংশ হিসেবে করোনা উপদ্রুত ইতালির সঙ্গে ইতোমধ্যেই বিমান চলাচল স্থগিত করেছে কাতার।          

উল্লেখ্য, চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান শহরের একটি বন্যপ্রাণীর বাজার থেকে গত বছরের ডিসেম্বরে ছড়িয়ে পড়ে প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস। সারা বিশ্বে এই ভাইরাসের আক্রমণের শিকার হয়েছেন এক লাখেরও বেশি মানুষ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ইতোমধ্যেই ‘হেলথ ইমার্জেন্সি’ ঘোষণা করেছে বিশ্বজুড়ে।   

এর আগে কুয়েত সরকারও একই সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। তারা বাংলাদেশসহ সাতটি দেশের সঙ্গে বিমান চলাচল বন্ধ ঘোষণা করে। গত শুক্রবার কুয়েতের সিভিল অ্যাভিয়েশন বিভাগ জানায়- বাংলাদেশ, মিসর, ভারত, সিরিয়া, লেবানন, শ্রীলঙ্কা ও ফিলিপাইনের সঙ্গে কুয়েতের ফ্লাইট চলাচল বন্ধ করা হয়েছে।