advertisement
আপনি দেখছেন

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে প্রথম কোনো বাংলাদেশির মৃত্যু হলো। গতকাল রোববার যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টারের নর্থ ম্যানচেস্টার জেনারেল হাসপাতালে তিনি মারা যান। আজ সোমবার ওই বাংলাদেশির ছেলের বরাত দিয়ে খবর দিয়েছে বিবিসি।

north menchester hospital

প্রতিবেদনে বলা হয়, তিনি একজন ব্রিটিশ-বাংলাদেশি। মাত্র পাঁচদিন আগে তার শরীরে ভাইরাসটির সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর তাকে ওই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই গতকাল তিনি মারা যান।

তার ছেলে মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝিতে তার বাবা ইতালিতে বেড়াতে যান। সেখানে তিনি দুই সপ্তাহ ছিলেন। যখন গিয়েছিলেন তখন ইতালিতে ভাইরাসটি তেমন ছড়ায়নি। কিন্তু ফিরে আসার সময় ভাইরাসটি সেখানে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে।

‘ম্যানচেস্টারে ফিরে আসেন গত ২৯ ফেব্রুয়ারি। কিন্তু তখন তিনি সুস্থ ছিলেন। এর তিন দিন পর ৩ মার্চ বাবার শরীরে করোনার লক্ষণ প্রকাশ পায়। এরপর স্থানীয় হেলথ সেন্টারে নিয়ে যাওয়ার পর ডাক্তাররা যখন শুনলেন তিনি ইতালি ফেরত, তখন সঙ্গে সঙ্গেই বাবাকে আলাদা করা হলো এবং নর্থ ম্যানচেস্টার জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়,’ যোগ করেন মোয়াজ্জেম হোসেন।

তিনি বলেন, ‘হাসপাতালে প্রথম কয়েকদিন তিনি ভালোই ছিলেন। তারপর ডাক্তাররা বলছিলেন, বাবার রক্তে পরিমাণমতো অক্সিজেন যাচ্ছে না। হার্টবিট অনিয়মিত হয়ে পড়েছে। এভাবে কয়েকদিন চলার পরই রোববার তিনি মারা যান।’

উল্লেখ্য, ৬০ বছর বয়সী এই বাংলাদেশি ১৯৮৯ সালে ইতালিতে চিরস্থায়ীভাবে চলে যান। মিলান শহর থেকে ৫০ মাইল দূরের একটি স্থানে তিনি পরিবারসহ বসবাস শুরু করেন। এরপর গত পাঁচ-ছয় বছর আগে পাকাপাকিভাবে যুক্তরাজ্যে চলে যান।