advertisement
আপনি দেখছেন

আফগানিস্তানে একই দিনে দুই জায়গায় প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছেন দুই প্রতিদ্বন্দ্বী। তারা হলেন- বর্তমান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি ও তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ। যার কারণে দেশটিতে নতুন করে তৈরি হয়েছে রাজনৈতিক সংকট। খবর আল-জাজিরা।

afghanistan in a new political crisis

জানা যায়, দুইজনের দ্বন্দ্ব নিরসনে মধ্যস্থতা করেন যুক্তরাষ্ট্রের আফগানিস্তান বিষয়ক বিশেষ দূত জালমে খলিলজাদ। কিন্তু তিনি ব্যর্থ হলে আজ সোমবার তারা উভয়েই আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেন। এ রকম ঘটনা বিশ্বে আর কোথাও এর আগে ঘটেনি।

আল-জাজিরা বলছে, রাজধানী কাবুলের প্রেসিডেনশিয়াল প্রাসাদে শপথ নেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি। তার শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে মার্কিন সরকার ও সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তাদের পাশাপাশি ন্যাটোর সেনা সদস্যরাও উপস্থিত ছিলেন।

অন্যদিকে, শপথ অনুষ্ঠানকে ঘিরে বিশাল এক আয়োজন করেন গনির প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ। তার শপথ অনুষ্ঠানেও অনেক রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব উপস্থিত ছিলেন।

এর আগেও দুইজনের রাজনৈতিক বিরোধিতা ও দ্বন্দ্বের কারণে আফগানিস্তানে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছিল। কিন্তু সেবার তারা একটি মীমাংসা করে অবস্থার পরিত্রাণ ঘটালেও এবার পরিস্থিতি চরম ঘোলাটে। একই পদে তারা দুইজন শপথ নেয়ায় আবারো আফগানিস্তান একটি অচলাবস্থার মুখোমুখি দাঁড়িয়েছে।

দেশটির জাতীয় নির্বাচনের পাঁচ মাস পর গত ১৮ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন কমিশন ফলাফল প্রকাশ করে। প্রকাশিত ফলাফলে আশরাফ গনি পেয়েছেন ৫০.৬৪ শতাংশ ভোট, আর আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ পেয়েছিলেন ৩৯.৫২ শতাংশ ভোট। ফলাফল প্রকাশের পর নির্বাচন কমিশন গনিকে বিজয়ী ঘোষণা করে।

কিন্তু ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে নিজেকে বিজয়ী ঘোষণা করেন আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ। তিনি প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে ভোট জালিয়াতির অভিযোগ এনে তদন্ত করে দেখার জন্য নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন।

খবরে বলা হয়েছে, গত সপ্তাহেই তারা আলাদাভাবে শপথ নেওয়ার ঘোষণা দেন। সেইসঙ্গে এ দাওয়াতপত্র বিলি করেন।

উল্লেখ্য, মাত্র কয়েকদিন আগেই আফগান তালেবানদের সঙ্গে আমেরিকার চুক্তি সই হয়েছে। ওই চুক্তি অনুযায়ী দেশটিতে মার্কিন সেনাদের একটি বড় অংশের চলে যাওয়ার কথা। কিন্তু নতুন রাজনৈতিক সংকট আফগানিস্তানকে আবার কোন দিকে নিয়ে যায় তাই দেখার বিষয়।