advertisement
আপনি দেখছেন

পশ্চিমতীরে দখলকৃত ভূমিতে ইসরায়েলি বসতিতে হানা দিয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। যার কারণে সেখানে জরুরি অবস্থা জারি করেছে স্থানীয় প্রশাসন। অন্যদিকে, ইসরায়েলের কারাগারে পাঁচ হাজার ফিলিস্তিনি নারী, শিশু ও পুরুষ বন্দি আবস্থায় আছেন। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে এসব বন্দির মধ্যেও ভয়াবহ ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। উদ্বেগে আছেন বন্দিদের পরিবার।

palestine prisonres familyবন্দিদের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন করেন পরিবারের সদস্যরা

আনাদুলো এজেন্সি বলছে, গত শুক্রবার ইসরায়েলের আশকেলন কারাগারে বন্দিদের করোনা শনাক্তের পরীক্ষা যে চিকিৎসক করেছিলেন পরের দিন শনিবার তিনি নিজেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ কারণে বন্দিদের মধ্যে দেখা দিয়েছে চরম আতঙ্ক। ফিলিস্তিন ভূখণ্ডে থাকা বন্দিদের পরিবারবর্গের মধ্যেও দেখা দিয়ে একই আতঙ্ক।

ওই চিকিৎসক আক্রান্ত হওয়ার পর তার সংস্পর্শে আসা ৩৫ জনকে আইসোলেশনে রাখার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে ফিলিস্তিন প্রিজোনার্স সোসাইটি (পিপিএস)।

পিপিএসের মুখপাত্র আমানি সারাহনেহ সোমবার বলেন, আইসোলেশনে যারা আছেন তাদের অবস্থা এখনো স্থিতিশীল। তবে নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না সবকিছু। কারণ কারাগারে পর্যাপ্ত জায়গার অভাব রয়েছে। এছাড়া বন্দিরা একে অপরের খুব কাছে অবস্থান করছেন।

israel jailইসরায়েলের আশকেলন কারাগার

এদিকে, ফিলিস্তিনে থাকা বন্দিদের পরিবারের সদস্যরা তাদের দেখার জন্য আবেদন করেও অনুমতি পাননি। কারা কর্তৃপক্ষ তাদের বলেছে, আগামী এক মাসে কোনো বন্দিকে তার পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে দেয়া হবে না।

প্রসঙ্গত, ইসরায়েলে এখন পর্যন্ত ২১৪ জনের দেহে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে।

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, প্রাণঘাতী এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে ১৫৭টি দেশে। মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৫১৬ জনে। গতকাল পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৬৯ হাজার ৫৫২ জন। এছাড়া চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়েছেন ৭৭ হাজার ৭৫৩ জন।

sheikh mujib 2020