advertisement
আপনি দেখছেন

বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) কারণে নানা ধরনের বাধার সম্মুখীন হচ্ছে বিমান সংস্থাগুলো। একদিকে যেমন যাত্রী সংকট রয়েছে, তেমনি অন্যদিকে যাত্রীদের সুরক্ষার বিষয়ও ভাবতে হচ্ছে সংস্থাগুলোকে। এমন পরিস্থিতিতে ফ্লাইট পরিচালনার সময় স্বাস্থ্য সুরক্ষা বাড়ানোর বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছে কাতার এয়ারওয়েজ।

qatar airways crewব্যক্তিগত সুরক্ষা সমগ্রী (পিপিই) পরে সেবা প্রদান করছে কাতার এয়ারওয়েজের ক্রুরা

যাত্রীরা যাতে নিরাপদ ও সুরক্ষিতভাবে ভ্রমণ করতে পারেন তাই বিমান সংস্থাটির কেবিন ক্রুদের ফ্লাইট পরিচালনার সময় হাতে হ্যান্ড গ্লাভস, মুখে মাস্ক ও চোখে সেফটি গগলস পরতে হবে। পাশাপাশি অতিরিক্ত সুরক্ষা হিসেবে ইউনিফর্মের ওপর পরতে হবে ডিসপোজেবল স্যুট। অর্থাৎ কেবিন ক্রুদের আগা-গোড়া ব্যাক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী (পিপিই) পরিধান করেই যাত্রীদের সেবা দিতে হবে।

বিমানে যাত্রীদের আসন গ্রহণেও থাকবে পার্থক্য। আগের মতো পাশাপাশি সিটে বসে ভ্রমণ করতে পারবেন না তারা। সেইসঙ্গে কেবিন ক্রুদের সঙ্গেও যাত্রীদের আগের মতো যোগাযোগ থাকবে না। আগামী ২৫ মে থেকে যাত্রীদেরও সুরক্ষা হিসেবে ভ্রমণের সময় মাস্ক বা ফেস কাভার পরতে হবে। পাশাপাশি সুরক্ষা সামগ্রী পরার জন্য যাত্রীদের পরামর্শ দিচ্ছে বিমান সংস্থাটি। নিয়মিত হাত ধোয়া, চোখে-মুখে হাত না দেওয়াসহ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে উৎসাহ দেওয়া হচ্ছে।

বিমান সংস্থাটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) আকবার আল বাকের বলেন, অতিরিক্ত সুরক্ষা ব্যবস্থার ফলে যাত্রীরা যেমন সুরক্ষিত থাকবেন তেমনি কেবিন ক্রুদেরও নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে। এ সংকটময় পরিস্থিতিতে যাত্রীদের নিরাপদ ভ্রমণে পাশাপাশি তাদের সর্বোচ্চ স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করেই ফ্লাইট পরিচালনা করতে চায় সংস্থাটি।

qatar airways 2কাতার এয়ারওয়েজ

তিনি আরো বলেন, ডব্লিউএইচও'র মতে এ মহামারি থেকে সুরক্ষিত থাকতে একে অন্যদের থেকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। এটি নিশ্চিত করেতে বিমানের ভেতর যেসব জায়গায় যাত্রীরা একত্রিত হওয়ার সুযোগ আছে সেসব জায়গায় চলাচল বন্ধ রাখা হবে।

তিনি আরো জানান, এখন থেকে ফ্লাইট পরিচালনার সময় বিজনেস ক্লাসগুলো আলাদা থাকবে এবং সেগুলোর দরজা সার্বক্ষণিক বন্ধ থাকবে। এই ক্লাসের যাত্রীদের খাবার আগের মতো টেবিলে না দিয়ে আলাদাভাবে ট্রেতে সরবরাহ করা হবে। তবে ইকোনমি ক্লাসের যাত্রীরা আগের মতোই খাবার পাবেন। যাত্রী ও ক্রুদের সুরক্ষার জন্য বিমানের ভেতরেই হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা থাকবে।

এছাড়া কাতার এয়ারওয়েজের প্রত্যেকটা ফ্লাইটের পর বিমানবন্দরে বিমানগুলোর ভেতরে ও বাইরে পরিষ্কার করা হচ্ছে। যাত্রীদের ব্যবহৃত হেডসেটগুলো জীবাণুনাশক দিয়ে ভালোভাবে পরিষ্কার করা হচ্ছে।