advertisement
আপনি দেখছেন

যুক্তরাষ্ট্রে এক গবেষণায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বানরের ওপর প্রয়োগকৃত ভ্যাকসিন ভালো ফলাফল পাওয়া গেছে। এতে দেখা যায়, বানরগুলো সংক্রমণ থেকে সুস্থ হওয়ার পাশাপাশি দেহে এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতেও সক্ষম হয়েছে।

vaccine symbolic picture 03প্রতীকী ছবি

জার্নাল সাইন্সে প্রকাশিত এ বিষয়ক দুই গবেষণার বরাতে জানা যায়, রিসাস ম্যাকাকিউ প্রজাতির বানরের ওপর এই গবেষণা পরিচালিত হয়েছে। এতে পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে যে, ভ্যাকসিন প্রয়োগের পর বানরের দেহে ভাইরাসের সংক্রমণ কমে যায় কি না। সেইসঙ্গে দেখা হয়েছে এই প্রাণিগুলোর দেহে ভাইরাসের বিরুদ্ধে কোনো রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে ওঠে কি না।

যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টতে অবস্থিত সেন্টার ফর ভাইরোলজি এন্ড ভ্যাকসিন রিসার্চের গবেষক ড্যান বারোচ বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৈশ্বিক পর্যায়ে পৌঁছে যাওয়ার পর পরই ভ্যাকসিন আবিষ্কার সবচেয়ে জরুরি বিষয় হয়ে গেছে। কিন্তু এই মারাত্মক ভাইরাসের বিরুদ্ধে মানবদেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কতটুকু কার্যকর তা অনেকটাই অজানা।

macaque monkeyরিসাস মাকাউয়েস প্রজাতির বানর

তিনি বলেন, আমরা দুটো গবেষণা করেছি। এতে দেখা যায় রিসাস ম্যাকাকিউ প্রজাতির বানরের দেহে ভ্যাকসিন দেয়ার পর তারা ভাইরাসটি থেকে মুক্ত হয়ে গেলো এবং আর এতে সংক্রমিত হয়নি।

ওয়াশিংটন পোস্ট বলছে, ড্যান বারোচ ও তার গবেষণা দলের সদস্যরা নয়টি প্রাপ্তবয়স্ক রিসাস ম্যাকাকিউ প্রজাতির বানরের দেহে প্রথমে করোনার সংক্রমণ ঘটান। দেখা যায়, প্রাণিগুলো সংক্রমিত হলেও তাদের দেহে এক ধরনের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হয়। কিছুদিন পর বানরগুলো সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে যায়।

প্রাণিগুলোর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা পরীক্ষা করার জন্য ৩৫ দিন পর আবার করোনাভাইরাসে সংক্রমিত করার চেষ্টা করা হয়। এতে দেখা যায়, কিছু বানরের অল্প কিছু উপশম দেখা দিলেও বাকিগুলোর দেখা যায়নি।

ড্যান বারোচ বলেন, প্রাপ্ত ফলাফল দেখে আমরা সন্তুষ্ট। তবে এ বিষয়ে আরো অনেক গবেষণার প্রয়োজন আছে। কারণ করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বানরের দেহে ও মানবদেহে ভিন্ন হয়।