advertisement
আপনি দেখছেন

লাদাখ সীমান্তে ভারত ও চীনের মধ্যকার উত্তেজনা এখনো কমেনি। বরং দুই দেশই যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে শুরু করে দিয়েছে। ইতোমধ্যে সীমান্তে অত্যাধুনিক মিসাইল সিস্টেম, ট্যাংক, কামান মজুত করেছে ভারত। অপরদিকে চীন সীমান্তেও ঝাঁকে ঝাঁকে উড়ছে ড্রোন।

indian army missile

ভারতীয় গণমাধ্যমগুলোর খবরে বলা হয়, চীনারা তাদের সীমান্তে শত শত ড্রোন উড়াচ্ছে। অনেক সময় সেগুলো সীমান্ত রেখা পেরিয়ে ভারতের ভুখণ্ডেও ঢুকে পড়ছে। সাম্প্রতিক সময়ে ভারতের অন্তত চারটি গুরুত্বপূর্ণ এলাকার উপর ওই ড্রোনগুলি উড়েছে।

পরিস্থিতি মোকাবেলায় ইতোমধ্যে সীমান্তে বিপুল পরিমান সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। ভারতের পক্ষ থেকে লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল (এলএসি) বরাবর কড়া নজরদারি শুরু করা হয়েছে। ইসরায়েলের তৈরি বিশেষ ড্রোন হেরন মোতায়েন করেছে নয়াদিল্লি।

এর আগে মে মাস থেকেই লাদাখ সীমান্তে এআর-৫০০ সি নামে হেলিকপ্টার আকৃতির বিশাল ড্রোন মোতায়েন করে চীন। ওই ড্রোনগুলো ৫ হাজার মিটার উঁচুতে উড়তে পারে এবং ৫০০ কেজি পর্যন্ত রসদ নিয়ে ১৭০ কিলোমিটার গতিতে টানা পাঁচ ঘন্টা আকাশে থাকতে পারে।

indian army drone

পাল্টা জবাব দিতে চলতি সপ্তাহে ভারতীয় সেনারা মোতায়েন করেছে হেরন মিডিয়াম অলটিটিউড লং এনডুরেন্স ড্রোন। এই ড্রোন অন্তত ১০ কিলোমিটার উঁচুতে উড়তে পারে এবং টানা ২৪ ঘন্টা আকাশে চক্কর কাটতে পারে। এ ছাড়া সীমান্তে ভারতীয় সেনাবাহিনীর কাছে রয়েছে পোর্টেবল ড্রোন, একাধিক স্পাইলাইট মিনি ড্রোন। যা দিয়ে সহজেই পার্বত্য এলাকায় শত্রুদের অবস্থান দেখে নেয়া সম্ভব।

২০১৮ সালে ইসরায়েলের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে এই ড্রোনগুলো তৈরি করে ভারত। যে কোনো আবহাওয়াতেই এই ড্রোন ওড়ানো সম্ভব। ১০ হাজার মিটার থেকে ৩০ হাজার ফুট উঁচু পর্যন্ত উড়তে সক্ষম এই ড্রোন। এগুলো রিয়েল টাইম ভিডিও ফুটেজও তুলে আনতেও সক্ষম।

sheikh mujib 2020