advertisement
আপনি দেখছেন

চীনের সঙ্গে চলমান উত্তেজনার মধ্যেই বেশকিছু চীনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করেছে ভারত। এমন আচরণে বেশ উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান।

india and china flagভারত ও চীনের পতাকা

টিকটিক, উইচ্যাট, লাইকির মতো বেশ কিছু জনপ্রিয় চীনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করেছে ভারত। এর প্রেক্ষিতে ঝাও লিজিয়ান বলেন, ভারতে চীনের ব্যবসা বন্ধ করে দেয়ার দায়দায়িত্ব একমাত্র সেখানকার সরকারের হাতেই আছে। এতে আমাদের কিছু বলার নেই।

চীন সরকার তাদের দেশের ব্যবসায়ীদের আন্তর্জাতিক আইন ও বিধিনিষেধ মেনে তবেই ব্যবসা করার নির্দেশনা দেয়। সেইসঙ্গে তারা যেখানে ব্যবসা করতে যাচ্ছে সেখানকার আইন-কানুনও মেনে চলার নীতিমালা আছে আমাদের। তারপরও কেন অ্যাপ নিষিদ্ধ করা হলো তা খতিয়ে দেখতে হবে, আরো বলেন তিনি।

tiktok banned in indiaভারতে নিষিদ্ধ হলো টিকটক অ্যাপ

গতকাল সোমবার ভারত সরকার ৫৯টি অ্যাপ বন্ধ করে দেয়। যার অধিকাংশ অ্যাপই চীনভিত্তিক। এর মধ্যে জনপ্রিয় অ্যাপ টিকটকও আছে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, চীনের সঙ্গে চলমান দ্বন্দ্বে এখন পর্যন্ত ভারতের নেয়া এটাই সবচেয়ে বড় পদক্ষেপ। যে সকল অ্যাপ বন্ধ করা হয়েছে, সেগুলো ভারতে বেশ জনপ্রিয়। এ থেকে বেশ টাকা কামিয়ে নিয়েছে চীনা কোম্পানিগুলো। তবে বিষয়টি নিয়ে ভারতের সাধারণ মানুষের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

এদিকে এ ঘটনা তদন্তে একটি কমিটি গঠন করেছে চীন সরকার। বন্ধ করে দেয়া অ্যাপ টিকটকের কাছ থেকে এই কমিটি ভারতীয় ব্যবহারকারীদের তথ্য চেয়েছিলো, কিন্তু তারা তা দেয়নি।

এই ঘটনায় কথা উল্লেখ করে এক বিবৃতিতে টিকটক জানায়, ভারতীয় আইন মেনেই কাজ করছে টিকটক। এখানকার তথ্য আইন অনুযায়ী বিদেশি কোনো সরকারের কাছে টিকটিক কর্তৃপক্ষ তথ্য ভাগাভাগি করতে পারে না। ব্যবহারকারীদের তথ্য কোম্পানির কাছেই থাকবে। চীনা সরকারও এতে কোনো হস্তক্ষেপ করতে পারে না। ভবিষ্যতেও অন্য কোনো দেশের সরকারও যদি এ সম্পর্কিত কোনো তথ্য চায় সেক্ষেত্রেও দেয়া হবে না।

sheikh mujib 2020