advertisement
আপনি দেখছেন

দক্ষিণ চীন সাগরের বিতর্কিত জলসীমায় পাঁচ দিনব্যাপী সামরিক মহড়া চালাচ্ছে চীন। যার কারণে দেশটির সমলোচনা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু বেইজিং সেই সমলোচলাকে পাত্তা না দিয়ে বলছে, তার তাদের স্বাধীন-সার্বভৌম সীমানার মধ্যেই মহড়া চালাচ্ছে।

chinese aircraft careearচীনা রণতরী- ফাইল ছবি

গত বৃহস্পতিরবার এক বিবৃতিতে এ বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে মার্কিন প্রতিরক্ষা সদরদপ্তর পেন্টাগন। এতে বলা হয়, চীন বিতর্কিত জলসীমায় সামরিক মহড়া চালিয়ে উস্কানিমূলক তৎপরতা দেখাচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে দক্ষিণ চীন সাগরের এ অঞ্চলে উত্তেজনা কমানোর চেষ্টা চালানো হচ্ছে। কিন্তু চীনের এমন উস্কানিমূলক তৎপরতা এ উত্তেজনা আরো বাড়িয়ে দেবে।

মার্কিন সরকারের এমন বিবৃতির জবাবে গতকাল শুক্রবার বেইজিংয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে চীনের পরারাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজয়িান বলেন, দক্ষিণ চীন সাগরের এ অঞ্চলে বাইরের অনেক দেশ এসে মহড়া চালায়। তাদের সেই কর্মকাণ্ডই এ অঞ্চলের উত্তেজনা বৃদ্ধির মূল কারণ।

us aircraft careearমার্কিন রণতরী- ফাইল ছবি

সংবাদ সম্মেলনে ঝাও লিজয়িান কোনো দেশের নাম না উল্লেখ করলেও তিনি যে যুক্তরাষ্ট্রকে লক্ষ্য করে এসব কথা বলেছেন তা পরিষ্কারভাবে বোঝা যায়।

উল্লেখ্য, দক্ষিণ চীন সাগরের সিদা দ্বীপপুঞ্জের কাছে গত বুধবার থেকে পাঁচ দিনব্যাপী সামরিক মহড়া চলানো শুরু করেছে চীন। আগামী রোববার পর্যন্ত এই মহড়া চলার কথা। এই দ্বীপুঞ্জের মালিকানা নিয়ে চীন ও ভিয়েতনামের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছে।

এদিকে চীনের সামরিক মহড়ার মধ্যেই আজ শনিবার ওই অঞ্চলে মহড়া চালিয়েছে দুটি মার্কিন বিমানবাহী রণতরী। মার্কিন নৌবাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়, ইউএসএস নিমিৎজ ও ইউএসএস রোনাল্ড রিগান নামের দুটি মার্কিন বিমানাবাহী রণতরী আজ দক্ষিণ চীন সাগরে মহড়া চালিয়েছে। তবে ঠিক কোন অংশে রণতরীগুলো মহড়া চালিয়েছে তা বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়নি।

বাণিজ্য চুক্তি এবং হংকং নিয়ে এমনিতেই যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে টানাপোড়ন রয়েছে। এরই মধ্যে এবার বিতর্কিত জলসীমায় দুই দেশের পাল্টাপাল্টি সামরিক মহড়ায় ওয়াশিংটন ও বেইজিংয়ের মধ্যকার উত্তেজনা আরো বাড়বে বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

sheikh mujib 2020