advertisement
আপনি দেখছেন

মরণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে সারিয়ে তুলতে হেপাটাইটিস-সি এর ওষুধ সোফোসবুভির ও ডাকল্যাতাসভিরের বিশেষ মিশ্রণ বেশ কার্যকর বলে প্রমাণ হয়েছে। সেইসঙ্গে সংক্রমিত রোগীর হাসপাতালে অবস্থানের স্থায়ীত্বও কমিয়েছে এই ওষুধ। এমন তথ্য জানিয়েছেন গবেষক ও অধ্যাপক এন্ড্রেউ হিল। যুক্তরাজ্যের লিভারপুল বিশ্ববিদ্যালয়ে এক সেমিনারে এ কথা বলেন তিনি।

sofosbuvir medicineসোফোসবুভির ওষুধ

হিল বলেন, ল্যাবের বিভিন্ন টেস্টে আমরা দেখেছি, ডাকল্যাতাসভির করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে বেশ কার্যকর। ভাইরাসটি সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ঘটায় ফুসফুস ও শ্বাসনালীতে। এই ওষুধ সেখানে প্রবেশ করে কার্যকর ভূমিকা পালন করে। সোফোসবুভিরও করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করে, কিন্তু তা ডাকল্যাতাসভিরের তুলনবায় কম।

তিনি বলেন, যদি এই চিকিৎসাপদ্ধতি কার্যকর প্রমাণ হয়, তাহলে বিশ্ব একটি সস্তা চিকিৎসা পদ্ধতি পাবে। দৈনিক ৭ থেকে ১৪ ডলারের কোর্সেই করোনারোগীদের চিকিৎসা করানো সম্ভব হবে। বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে আগে থেকেই এই ওষুধের মজুদ আছে। যার দরুন জনসাধারণের চিকিৎসায় বড় কোনো উদ্যোগের প্রয়োজন পড়বে না। কিন্তু তার জন্য আমাদের বড় আকারে গবেষণা করতে হবে।

daclatasvir medicineডাকল্যাতাসভির ওষুধ

হিয়ালিওর বরাতে জানা যায়, প্রাথমিকভাবে গবেষকরা ইরানের চারটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাহায্যে দেশটির ৬৬ জন করোনারোগীর ওপর একটি গবেষণা করেছেন। এর মধ্যে ৩৩ জনকে দেয়া হয় সোফোসবুভির ও ডাকল্যাতাসভির। আর বাকি ৩৩ জনকে দেয়া হয় ইরানি হাসপাতালে নির্ধারণ করে দেয়া ওষুধ।

হিল বলেন, সোফোসবুভির ও ডাকল্যাতাসভিরের প্রয়োগে আমরা বেশ কিছু ইতবাচক দিক লক্ষ করেছি। প্রয়োগ শুরুর ১৪ দিন পর আমরা দেখলাম, ২৯ জন অর্থাৎ ৮৮ শতাংশ রোগী সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠেছেন। হাসপাতাল থেকে চিকিৎসাপ্রাপ্তদের মধ্যে এই সংখ্যা ২২ জন অর্থাৎ ৬৭ শতাংশ।

এ সময় ৩ জনের মৃত্যু হয়। আর হাসপাতালের দেয়া চিকিৎসায় ৫ জনের মৃত্যু হয়।

হিল আরো বলেন, প্রাপ্ত ফলাফল বেশ উৎসাহদায়ক। কিন্তু এর ওপর ভিত্তি করে কোনো মতামত দেয়া কঠিন। আমাদের এ বিষয়ক আরো বৃহৎ গবেষণার প্রয়োজন। ইতোমধ্যে সে পরিকল্পনা আমরা সেরে রেখেছি।

হিয়ালিও বলছে, পরবর্তী গবেষণার জন্য অধ্যাপক হিল ও তার গবেষক ব্রাজিল, মিশর, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ইরানের ২ হাজার করোনারোগীর ওপর সোফোসবুভির ও ডাকল্যাতাসভিরের প্রয়োগ করবেন।

sheikh mujib 2020