advertisement
আপনি দেখছেন

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ভারতের নেতিবাচক প্রচার থামছে না। বেশ কয়েকদিন আগে বাংলাদেশকে দেওয়া চীনের শুল্কমুক্ত সুবিধাকে ‘খয়রাতি’ বলে অভিহিত করে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছিল দেশটির শীর্ষ বাংলা পত্রিকা আনন্দবাজার। এরপর সপ্তাহখানেক আগে দেশটির বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স (বিএসএফ) অভিযোগ করেছে, বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিজিবি) নাকি মুর্শিদাবাদ সীমান্তে ভারতের কয়েক হাজার একর জমি দখল করেছে। গতকাল আবারও বিস্ফারক মন্তব্য করেছে বিএসএফ। তারা বলেছে, বিজিবির সাহায্যেই নাকি গরু পাচার হয়!

bgb bsf

সোমবার বিজিবিকে জড়িয়ে এক দীর্ঘ বিবৃতি দিয়েছে বিএসএফ। সেই বিবৃতির আলোকে প্রতিবেদন প্রকাশ করে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস। সেখানে বলা হয়, ভারত থেকে বাংলাদেশে যে গরু পাচার হয় তা বিজিবির সম্পূর্ণ সমর্থনেই হয়ে থাকে। শুধু তাই নয়, বিএসএফ দাবি করেছে, এ নিয়ে বিজিবির সঙ্গে চুক্তি হয় পাচারকারীদের!

কীভাবে জলপথে গরু পাচার হয় তার বর্ণনা দিতে গিয়ে বিবৃতিতে বলা হয়েছে, প্রথমে প্রাণীগুলোর চোখ বেঁধে দেওয়া হয়। তারপর কলাগাছের গুড়ির সঙ্গে বেঁধে পানিতে ভাসিয়ে দেওয়া হয় প্রাণীগুলোকে। ভাসতে ভাসতে সেগুলো চলে আসে বাংলাদেশ সীমান্তে। তারপর স্পীডবোটে করে বাংলাদেশে নিয়ে যাওয়া হয়। এই পুরো প্রক্রিয়ায় একজন পাচারকারী পান ১০ হাজার টাকা করে। চুক্তি অনুযায়ী বিজিবি সদস্যরাও এখান থেকে সুবিধা নিয়ে থাকেন।

bgb bsf conference

এর আগে ‘ভারতের জমি দখল করেছে বিজিবি’ বিএসএফের এমন অভিযোগের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে একটি বিবৃতি দিয়েছিল বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী। সপ্তাহ না ঘুরতেই বিএসএফ আবারো বিজিবিকে জড়িয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করলো। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিজিবির এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, এটি বিএসএফ তথা ভারতের ঔদ্ধত্য। শিগগিরই আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের কাছে এমন বক্তব্যের প্রতিবাদ পাঠানো হবে।

sheikh mujib 2020