advertisement
আপনি দেখছেন

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোনের সঙ্গে ফোনালাপ হয়েছে ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপে মার্কিন প্রস্তাবণার বিষয়ে দুই নেতা ফোনালাপে আলোচনা করেন। এ সময় রুহানি ম্যাক্রোনকে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের কথায় যেন ইউরোপ প্রভাবিত না হয়।

rouhani and macronফ্রান্স প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোন (বামে) ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি (ডানে)

রুহানি বলেন, আগামী ১৮ অক্টোবর জাতিসংঘের নিরাপত্তা কাউন্সিলের ২২৩১ নম্বর প্রস্তাব অনুযায়ী ইরানের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠে যাবে। কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সে প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টায় আছে। তারা আমাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহালে একটি প্রস্তাব দিতে যাচ্ছে জাতিসংঘে। বাকি দেশগুলোর সে প্রস্তাব প্রতিহত করা উচিত।

তিনি বলেন, ২০১৮ সালে মার্কিনিরা আমাদের সঙ্গে করা পরমাণু সমঝোতা চুক্তি থেকে বের হয়ে আসে। তাই তাদের সেই চুক্তি ব্যবহার করে কোনো সিদ্ধান্ত কিংবা প্রস্তাব দেয়ার অধিকার নেই।

un seceurityজাতিসংঘের নিরাপত্তা কাউন্সিল

ফোনালাপে ম্যাক্রোন পরমাণু সমঝোতা চুক্তির গুরুত্ব ও তাৎপর্য মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে বলেন, জাতিসংঘ কর্তৃক ইরানের ওপর দেয়া অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা বর্ধিত করতে চাইছে যুক্তরাষ্ট্র। ফ্রান্স এতে দ্বিমত পোষণ করেছে। ইতোমধ্যে আমরা আমাদের সিদ্ধান্ত তাদের জানিয়ে দিয়েছি।

জানা যায়, গত মঙ্গলবার নিরাপত্তা পরিষদে ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহালের বিষয়ে একটি প্রস্তাব উপস্থাপন করার কথা ছিল যুক্তরাষ্ট্রের। কিন্তু সে প্রস্তাব পরে বাতিল হয়। এরপর তারা নতুন এক প্রস্তাব তৈরি করার পরিকল্পনা নেয়।

সেই প্রস্তাবনা প্রসঙ্গে জাতিসংঘে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি কেলি ক্রাফট বলেন, নতুন প্রস্তাবে আমরা নিরাপত্তা কাউন্সিলের অভিমতকে প্রাধান্য দিয়েছি। পুরনো থেকে এটি একটু ভিন্ন। কারণ বেশ কিছু নতুন বিষয় এতে যুক্ত করা হয়েছে। ইরানের ওপর অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতেই হবে। যাতে করে তারা ভয়ঙ্কর অস্ত্রের ব্যবসা করতে না পারে।

sheikh mujib 2020