advertisement
আপনি দেখছেন

যুক্তরাজ্যের এক রোগীর শরীরে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া তৈরি হওয়ার কারণে বন্ধ রাখা করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন ট্রায়াল আবার শুরু করলো অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। গত মঙ্গলবার ট্রায়াল বন্ধ রাখার ঘোষণা দেওয়া হয়েছিলো। এই সময়ে ওই রোগীর শরীরে ভ্যাকসিনের কারণেই কোনো সমস্যা হচ্ছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হয়েছে।

oxford resumes vaccine trial

কিন্তু নতুন ঘোষণায় অক্সফোর্ড জানিয়েছে, তাদের ভ্যাকসিন এখন পর্যন্ত নিরাপদ বলে প্রমাণিত এবং তারা আবার ট্রায়াল কার্যক্রম চালিয়ে যাবেন।

যুক্তরাষ্ট্রের স্বাস্থ্য সচিব ম্যাট হ্যানকক এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন। তিনি বলেন, “কদিন বন্ধ রাখা প্রমাণ করেছে যে আমরা সবার নিরাপত্তাকেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেই। আমরা আমাদের গবেষকদের সর্বোচ্চ সুযোগ-সুবিধা দিবো। যাতে তারা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভ্যাকসিন তৈরি করতে সক্ষম হন।”

অক্সফোর্ডের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এমন কিছু হতে পারে তা প্রতাশিত ছিলো। বৃহত্তর পর্যায়ে টেস্টের সময় কোনো কোনো রোগী ভ্যাকসিন নিলে অসুস্থ হয়ে যেতে পারেন- এমন ধারণা আগে থেকে ছিলো বলে দাবি করা হয়।

গবেষকদের পক্ষ থেকে অসুস্থ হয়ে পড়া স্বেচ্ছাসেবীর বিষয়ে কোনো তথ্য প্রকাশ করা হয়নি। তবে নিউ ইয়র্ক টাইমস এক প্রতিবেদনে বলেছে, ভ্যাকসিনের কারণে যে সব সমস্যা হতে পারে তার মধ্যে একটি হলো স্পাইনাল কর্ডের সমস্যা। তবে এটি অন্য কোনো ভাইরাল সংক্রমণের কারণেও হতে পারে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, বিশ্বজুড়ে অন্তত ১৮০টি প্রতিষ্ঠান ভ্যাকসিনের ট্রায়াল চালাচ্ছে। কিন্তু তাদের মধ্যে কারোটিই এখন পর্যন্ত ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল করতে সক্ষম হয়নি।

অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনটি সবার আগে বাজারে আসতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এক ও দুই নম্বর টেস্টের সফল ফলাফলের পর অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন নিয়ে এমন উচ্চাশা তৈরি হয়েছে। আপাতত তিন নম্বর ধাপে পরীক্ষা চালাচ্ছে অক্সফোর্ড। এই ধাপে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ব্রাজিল ও দক্ষিণ আফ্রিকার ৩০ হাজার স্বেচ্ছাসেবী অংশগ্রহণ করেছেন।

উল্লেখ্য, নোভেল করোনাভাইরাস সামাল দিতে পুরো পৃথিবী হিমশিম খাচ্ছে। এই ভাইরাসের কারণে এখন পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে নয় লাখ ২৪ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এই ভাইরাসে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দুই কোটি ৮০ লাখের বেশি। করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। সবচেয়ে বেশি আক্রান্তও এই দেশেই। এরপরই আছে বাংলাদেশের প্রতিবেশি দেশ ভারত। 

sheikh mujib 2020