advertisement
আপনি দেখছেন

কৃষ্ণ সাগরে তুরস্ক নতুন করে আরো ৮৫ বিলিয়ন ঘনমিটার গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কার করেছে। এ নিয়ে সেখানে এখন পর্যন্ত তাদের আবিষ্কৃত গ্যাসক্ষেত্রের মজুদ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪০৫ বিলিয়ন ঘনমিটার। এ তথ্য জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান।

erdoan gas filedতুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান

এর আগে গত আগস্টে কৃষ্ণ সাগরে তুরস্কের উপকূলের প্রায় ১০০ নটিক্যাল মাইল উত্তরে ৩২০ বিলিয়ন ঘনমিটার গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কার করে তুর্কি অনুসন্ধানকারী জাহাজ ফাতিহ। যা দেশটির ইতিহাসের সবচেয়ে বড় প্রাকৃতিক সম্পদ আবিষ্কার এবং চলমান ২০২০ সালে বিশ্বের সবচেয়ে বড় অনুসন্ধান।

শনিবার অনুসন্ধানকারী জাহাজ পরিদর্শনে গিয়ে তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ৪ হাজার ৭৭৫ মিটার গভীরতায় পৌঁছানোর পর এই বোরহোলের কাজ শেষ হয়েছে।

এ সময় তিনি জানান যে, জাহাজটি রক্ষণাবেক্ষণের জন্য বন্দরে ফিরে আসার পরের মাসে একই সীমানায় 'সাকারিয়া' নামে আলাদা বোরহোলে নতুন কার্যক্রম শুরু করবে। ইতোমধ্যে কানুনি নামে আরো একটি জাহাজ অনুসন্ধান কাজকর্মের জন্য কৃষ্ণ সাগরে চলে গেছে।

turkey ship searching oil gas

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এই ক্ষেত্র থেকে যদি বাণিজ্যিকভাবে গ্যাস উত্তোলন করা যায়, তাহলে জ্বালানি আমদানির ক্ষেত্রে রাশিয়া, ইরান এবং আজারবাইজানের ওপর তুরস্কের নির্ভরতা অনেকাংশেই কমে যাবে। গত বছর দেশগুলো থেকে আঙ্কারার মোট আমদানি ছিল ৪১ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি।

বিশ্লেষকরা বলছেন, গভীর সমুদ্রে অনুসন্ধান ব্যয়বহুল এবং সময়সাপেক্ষ। তাই আবিষ্কারের তাৎপর্য সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে।

এদিকে, ২০২৩ সাল থেকেই এখান থেকে গ্যাস সংগ্রহ করার আশা করছে তুরস্ক সরকার। তবে ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানিয়েছে, ২০২২ সাল থেকেই বার্ষিক ১৫ বিলিয়ন ঘনমিটার গ্যাস প্রবাহের পরিকল্পনা করা হয়েছে।

sheikh mujib 2020