advertisement
আপনি দেখছেন

রাশিয়া থেকে তুরস্কের এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র ক্রয় নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র কম জল ঘোলা করেনি। কিন্তু নিজের অবস্থানে অনড় রয়েছে আঙ্কারা। এবার দেশটির পক্ষ থেকে রাশিয়ার তৈরি এই অত্যাধুনিক আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ব্যবহারের পক্ষে ‘নতুন’ যুক্তি দেখানো হলো।

s 400 turkeyএস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা

তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, ন্যাটোর কিছু সদস্য দেশ রাশিয়ার তৈরি এস-৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ব্যবহার করছে। তুরস্কও ন্যাটোর সদস্য হিসেবে এস-৪০০ ব্যবহার করবে।

দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বৃহস্পতিবার জানায়, এস-৩০০ এবং এস-৪০০ দুটোই রাশিয়ার তৈরি। এস-৪০০ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার পুরনো সংস্করণ হলো এস-৩০০।

turkish defense minister hulusi sizeতুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী হুলুসি আকার

তুর্কি গণমাধ্যম জানিয়েছে, দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রী এবং সংসদের পরিকল্পনা ও বাজেট কমিটির সদস্য হুলুসি আকার বিষয়টি নিয়ে বলেন, ন্যাটোর সদস্য দেশগুলোতে যেভাবে এস-৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ব্যবহৃত হয়, তুরস্কও সেভাবে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ব্যবহার করবে।

জানা যায়, অন্তত ২০টি দেশের এস-৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা বিক্রি করেছিল রাশিয়া। এর মধ্যে সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্য দেশ বুলগেরিয়া, গ্রিস ও স্লোভাকিয়াও রয়েছে।

হুলুসি আকার বলেন, তুরস্ক তাদের পরিকল্পনা অনুসারে এস-৪০০ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ ও প্রস্তুতি প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখবে।

এস-৪০০ ব্যবস্থা এবং মার্কিন অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান এফ-৩৫ নিয়ে কাজ করতে একটি যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন করারও আহ্বান জানিয়েছেন হুলুসি আকার।

তুর্কি প্রতিরক্ষা মন্ত্রী বলেন, এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এবং এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের যে কৌশলগত উদ্বেগ রয়েছে, তা নিয়ে ওয়াশিংটনের সঙ্গে আলোচনায় প্রস্তুত আঙ্কারা।

প্রসঙ্গত, তুরস্ককে এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান দেওয়ার কথা ছিল যুক্তরাষ্ট্রের। কিন্তু রাশিয়া থেক এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র ক্রয় করায় তা দেওয়া থেকে বিরত রয়েছে মার্কিন প্রশাসন।

sheikh mujib 2020