advertisement
আপনি দেখছেন

এই মুহূর্তে করোনার আক্রমণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশের নাম ব্রাজিল। প্রাণঘাতী কোভিড যেন সর্বশক্তি দিয়ে লাতিন আমেরিকার এই দেশটির ওপর হামলে পড়েছে। প্রতিদিন মারা যাচ্ছে কমবেশি ৪ হাজার মানুষ, সংক্রমণ লাখ ছুঁইছুঁই। কিন্তু ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জইর বলসোনারোর সাফ ঘোষণা- যত মানুষই মারা যাক না কেন, লকডাউন জারি করা হবে না!

brazil president bolsonaroজইর বলসোনারো

গতকাল বুধবার দেয়া এক ভাষণে দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেন বলসোনারো। শুধু ব্রাজিলের মানুষ নয়, সারা পৃথিবীই তার কথা শুনে হতবাক। তিনি বলেন, লকডাউনের প্রশ্নই আসে না। ‘ঘরে থাকা’ এবং ‘সবকিছু বন্ধ রাখা’র নীতিতে আমরা বিশ্বাস করি না। লকডাউনে গিয়ে দেশকে স্থবির করে দিলে অর্থনীতির যে ক্ষতি হবে, তা করোনার চেয়েও মারাত্মক।

এ নিয়ে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছেন প্রেসিডেন্ট জইর বলসোনারো। দেশের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা তার এই একগুঁয়ে অবস্থান থেকে সরে আসার আহ্বান জানিয়েছেন। সাধারণ মানুষ প্ল্যাকার্ড হাতে রাস্তায় নেমে এসেছে। প্ল্যাকার্ডে লেখা- ‘বলসোনারো গণহত্যাকারী’।

বিশ্বব্যাপী জরিপ পরিচালনাকারী সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটার জানিয়েছে, গত ৬ এপ্রিল ব্রাজিলে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪ হাজার ১৯৫ জন। তার পরদিন অর্থাৎ ৭ এপ্রিল মারা গেছেন ৩ হাজার ৭৩৩ জন। এদিন (৭ এপ্রিল) আক্রান্ত হয়েছেন ৯০ হাজার ৯৭৩ জন।

friday update

ওয়ার্ল্ডোমিটার আরো জানিয়েছে, (বাংলাদেশ সময় ৮ এপ্রিল সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত) ব্রাজিলে মোট আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছেছে ১ কোটি ৩১ লাখ ৯৭ হাজার ৩১ জন। এছাড়া দেশটিতে মোট মৃত্যুর সংখ্যা পৌঁছেছে ৩ লাখ ৪১ হাজার ৯৭ জনে।

বিবিসির এক প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, ব্রাজিলের হাসপাতালগুলোতে ভয়াবহ অবস্থা বিরাজ করছে। কোথাও তিল ধারণের ঠাঁই নেই। হাসপাতালের সামনে ভর্তির জন্য অপেক্ষা করে রোগীরা মারা যাচ্ছে। দেশটির পুরো স্বাস্থ্য ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ভেঙে পড়েছে। কিন্তু দেশটির প্রেসিডেন্ট বলসোনারো যেন এসব দেখেও দেখছেন না।