advertisement
আপনি দেখছেন

ফিলিস্তিনের ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস সাম্প্রতিক গাজা যুদ্ধের সময় দখলদার ইসরায়েলি বাহিনীর একটি যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করার চেষ্টা করে। বিষয়টি স্বীকার করেছেন খোদ ইসরায়েলি বিমানবাহিনীর প্রধান জেনারেল আমিকাম নুরকিন।

hamas missile demonstrationফিলিস্তিনের ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের মিসাইল

ইসরায়েলি টিভি চ্যানেল টুয়েলভকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বিষয়টি স্বীকার করে এই জেনারেল বলেন, তাদের জঙ্গিবিমান লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়েছিল হামাস। কিন্তু সেটা বিমানে আঘাত হানেনি। গত ১০ মে শুরু হওয়া যুদ্ধ চুক্তির মাধ্যমে শেষ হয় গত ২১ মে।

ইসরায়েলি বিমানবাহিনীর প্রধান বলেন, তাদের সামরিক বিমানবন্দরগুলো এখন হামাসের ক্ষেপণাস্ত্রের আওতায় চলে এসেছে। ফলে সেগুলো এখন মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। হামাসের বর্তমান ক্ষেপণাস্ত্রগুলো সহজেই ইসরায়েলের সামরিক বিমানবন্দরগুলো পর্যন্ত পৌঁছাতে পারবে।

amicam nurkin israel air chiefইসরায়েলি বিমানবাহিনীর প্রধান জেনারেল আমিকাম নুরকিন

এ ছাড়া হামাস ও গাজার অন্যান্য প্রতিরোধ সংগঠনগুলো যে আগের চেয়ে আরো সুসংহত, সেটা সাম্প্রতিক যুদ্ধে স্পষ্ট হয়েছে বলেও স্বীকার করেন জেনারেল আমিকাম নুরকিন।

প্রসঙ্গত, গত মাসের ওই যুদ্ধে ইসরায়েলের দখলদার বাহিনী গাজায় নির্বিচার বিমান থেকে বোমা হামলা চালায়। এতে অনেক বেসামরিক ভবন ও ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়। শিশু ও নারীসহ অন্তত ১৫৪ জন ফিলিস্তিনি নিহত হন। জবাবে হামাস ও গাজার অন্যান্য প্রতিরোধ সংগঠনগুলোও ইসরায়েলে সাড়ে ৪ হাজারের মতো রকেট ও ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ে। এতে অন্তত ১২ ইসরায়েলি প্রাণ হারায়। এ ছাড়া বিভিন্ন স্থাপনাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়।