advertisement
আপনি দেখছেন

লেবাননের হিজবুল্লাহর কাছে ১৫-৭০০ কিলোমিটার পাল্লার দেড় লাখ ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে বলে জানিয়েছে ইসরায়েলি একটি বিখ্যাত গণমাধ্যম। তেল আবিবের সঙ্গে যুদ্ধ বাঁধলে ইসরায়েলে প্রতিদিন এক থেকে তিন হাজার ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করবে সংগঠনটি। আজ বৃহস্পতিবার ‘ওয়ালা’ -এর বরাত দিয়ে এ খবর প্রকাশ করেছে পার্সটুডে।

hezbollahs missilesহিজবুল্লাহর ক্ষেপণাস্ত্র, ফাইল ছবি

খবরে বলা হয়, ২০০৬ সালে ইসরায়েলের সঙ্গে যুদ্ধের পর গত ১৫ বছরে ক্ষেপণাস্ত্রের মজুদ অনেক গুণ বাড়িয়েছে হিজবুল্লাহ। বিভিন্ন ধরনের ক্ষেপণাস্ত্রের পাশাপাশি ২০০ কিলোমিটার পাল্লার গাইডেড মিসাইল এবং ৪০০ কিলোমিটার পাল্লার ড্রোন রয়েছে তাদের হাতে।

ইসরায়েলি আরেকটি গণমাধ্যম দৈনিক হারেৎজ বলেছে, হিজবুল্লাহর নিখুঁত ক্ষেপণাস্ত্র নির্মাণ প্রকল্পে বড় ধরনের হামলার চেষ্টা করেছে তেল আবিব। তা সত্ত্বেও সংগঠনটির আধুনিক অস্ত্রাগার সমৃদ্ধ হয়েছে, এ ক্ষেত্রে তারা সফল। হিজবুল্লাহ এ ক্ষেত্রে এতটাই অগ্রসর, যা নিয়ে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীতে।

hezbollahs missiles 1হিজবুল্লাহর ক্ষেপণাস্ত্র, ফাইল ছবি

এ বিষয়ে ইসরায়েলি সামরিক বিশ্লেষক এলওয়ান বেন ডাফিন বলেন, শত শত নিখুঁত ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে হিজবুল্লাহর কাছে। সংঘাত শুরু হলে এসব ক্ষেপণাস্ত্র লেবানন সীমান্ত দিয়ে বৃষ্টির মতো ছোঁড়া হবে ইসরায়েলের ভূখণ্ডে।

এর আগে গেলো বছরের শেষের দিকে হিজবুল্লাহ মহাসচিব হাসান নাসরুল্লাহ বলেছিলেন, আগের বছরের চেয়ে নিখুঁত ক্ষেপণাস্ত্রের সংখ্যা দ্বিগুণ করা হয়েছে। এসব ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে ইসরায়েলের যেকোনো স্থানে আঘাত হানা যাবে।

প্রসঙ্গত, হিজবুল্লাহর হাতে ঠিক কী পরিমাণ ক্ষেপণাস্ত্রসহ বিভিন্ন ধরনের অস্ত্র রয়েছে, তার সঠিক হিসাব জানা যায় না। তবে বিভিন্ন গণমাধ্যম এ বিষয়ে মাঝেমধ্যেই খবর প্রকাশ করে আসছে।