advertisement
আপনি দেখছেন

সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী কন্ডোলিৎসা রাইস আফগানিস্তানের তালেবানের পরিবর্তন নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। একই সঙ্গে আফগানিস্তানে মার্কিন সেনাদের পরাজয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন তিনি। দেশটির গণমাধ্যম সিএনবিসি নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন।

condoleezza rice former us foreign secretaryসাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী কন্ডোলিৎসা রাইস, ফাইল ছবি

কন্ডোলিৎসা বলেন, বিগত দুই দশকে তালেবান পরিবর্তন হয়েছে বলে যে কথা বলা হচ্ছে তা নিয়ে তার যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। বরং তালেবান আবারও আল কায়েদাকে পুনর্গঠনের সুযোগ দিতে পারে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক এই পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি না, এরা নতুন তালেবান। আল কায়েদার সঙ্গে তাদের বন্ধন কখনো ছিন্ন হবে না। আমরা জানি যে, তারা আরও গভীরভাবে সমন্বিত হচ্ছে। এ অবস্থায় নিরাপত্তা হুমকি থেকেই যায় এবং উদ্ভূত পরিস্থিতিতে যুক্তরাষ্ট্রসহ সকলকে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে বলে আমি মনে করি।’

taliban govtসরকার গঠন করেছে তালেবান, এখন শপথের অপেক্ষা, সাম্প্রতিক ছবি

প্রসঙ্গত, দীর্ঘ ২০ বছরের সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী লড়াই করে অবশেষে গত ১৫ আগস্ট পুরো আফগানিস্তানে নিজেদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করে তালেবান। শর্ত অনুযায়ী ৩১ আগস্টের মধ্যে আফগানিস্তান ছাড়তে বাধ্য হয় মার্কিন নেতৃত্বাধীন ন্যাটো বাহিনী। দুই দশক পর আবারও দেশটির নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর তালেবান বার বার বলেছে যে, ২০ বছর আগের আর এখনকার তালেবান এক নয়। একই সঙ্গে আফগানিস্তানের মাটি ব্যবহার করে কোনো গোষ্ঠী যাতে অন্য কোনো দেশের বিরুদ্ধে কিছু না করতে পারে সে নিশ্চয়তাও দিয়েছে তালেবান।

আল কায়েদার সাবেক নেতা ওসামা বিন লাদেন আফগানিস্তানে আছে— এমন অজুহাতে ২০০১ সালে আফগানিস্তানে আগ্রাসন চালায় মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোট। ক্ষমতাচ্যুত হয় তৎকালীন তালেবান সরকার। ওই অভিযানের ক্ষেত্রে যেসব ব্যক্তি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন তার অন্যতম হলেন এই কন্ডোলিৎসা রাইস। ২০০৫ সাল থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত রাইস মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। আর আফগানিস্তানে আগ্রাসন শুরুর সময় তিনি ছিলেন মার্কিন সরকারের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা।