advertisement
আপনি পড়ছেন

ভারত সরকার দীর্ঘদিন ধরে দাবি করছে, জম্মু-কাশ্মিরে সহিংসতা বাড়ছে। বাড়ছে জঙ্গিকার্যকলাপও। দেশের বাইরে থেকে আসা জঙ্গিরা এসব অপকর্মের জন্য দায়ী। তবে জম্মু ও কাশ্মিরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ বলেছেন, এ জঙ্গিরা বহিরাগত কেউ নয়, তারা এই কাশ্মিরেরই যুবক। ক্ষুব্ধ হয়ে তারা হাতে অস্ত্র তুলে নিচ্ছেন। রোববার ন্যাশনাল কনফারেন্সের ওই নেতা দাবি করেন, কাশ্মিরের পরিস্থিতি এমন জায়গায় গেছে যে, শ্রীনগরে কেউ আর সুরক্ষিত নয়।

omar abdullah angryজম্মু ও কাশ্মিরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ

ডোডাতে এক সম্মেলনে তিনি বলেন, উপত্যকায় জঙ্গিকার্যকলাপ আবারো বাড়ছে। তার সময় যে কাজ মুছে গিয়েছিল ফের তা মাথাচাড়া দিচ্ছে দাবি করে ওমর আবদুল্লাহ বলেন, অবস্থা এমন চরমে গিয়ে পৌঁছেছে যে, এ অঞ্চলে কেউই আর সুরক্ষিত নন।

তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছিল, ৩৭০ ধারা বিলোপের পর কাশ্মির থেকে জঙ্গিবাদ মুছে যাবে। বলা হয়েছিল, ৩৭০ ধারা বিলোপের পর বড় শিল্পোদ্যোগীরা কাশ্মিরে বিনিয়োগ করবেন। এখানে প্রচুর যুবকের কর্মসংস্থান হবে। কিন্তু কিচ্ছু হয়নি। যে প্রকল্পগুলো চলছে সেখানেও কাজ পাননি স্থানীয়রা। এসব কারণে ক্ষুব্ধ যুবকরা হাতে আবারো অস্ত্র তুলে নিয়েছেন।

kashmir muslim 1

ওমর আবদুল্লাহ বলেন, জীবনের শেষ সময় পর্যন্ত তিনি জম্মু ও কাশ্মিরের স্পেশাল স্ট্যাটাসের জন্য লড়াই চালিয়ে যাবেন।

বিগত কয়েক মাস ধরে কাশ্মিরে আগের তুলনায় সহিংসতা অনেকখানি বেড়ে গেছে। এতে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর অনেক সদস্য হতাহত হচ্ছেন, আবার অনেক ‘জঙ্গি নিকেশ’ করারও দাবি করছেন তারা। কিন্তু সাধারণ কাশ্মিরি জনগণ বলছে, বেসামরিক ও সাধারণ লোকজনই নিরাপত্তাবাহিনীর হামলার শিকার হচ্ছে।

বিষয়টি নিয়ে এরই মধ্যে বেশ বিতর্ক দেখা দিয়েছে। এমনকি অনেক ক্ষেত্রে দাফন করে ফেলা লাশ পুনরায় তুলে তা ময়নাতদন্ত করা হচ্ছে। বিষয়টি ভারত অধিকৃত জম্ম-কাশ্মিরের প্রশাসনকে অস্বস্তিকে ফেলেছে।

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস