advertisement
আপনি পড়ছেন

ভারতজুড়ে গরুর সংখ্যা বাড়ছে। এর বড় একটি অংশ অনুৎপাদনশীল। এগুলোর অত্যাচারে দিনকে দিন অতিষ্ঠ হয়ে উঠছেন বিভিন্ন রাজ্যের মানুষ। ত্যক্ত-বিরক্ত হয়ে এবার এ ধরনের ৮০০ গরুকে ধরে নিয়ে পৌরসভার চত্বরে রেখে আসলেন এলাকাবাসী। সম্প্রতি ভারতের মধ্যপ্রদেশের ভিন্দ জেলার একটি শহরে এই ঘটনা ঘটেছে।

cowগরু নিয়ে সমস্যায় এলাকাবাসী

তারা জানান, বেওয়ারিশ এসব পশুদের ‘অত্যাচারে’ তারা অতিষ্ঠ! গরুগুলো যেখানে সেখানে তেড়ে আসে। নষ্ট করে ফসল। কিন্তু পৌরসভা তাদের গোয়ালে রাখার কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। এরই প্রতিবাদে ৭০০-৮০০ গবাদি পশুকে ধরে পৌরসভা চত্বরে রেখে আসেন এলাকাবাসী।

মধ্যপ্রদেশের আকোড়া শহরের স্থানীয় বাসিন্দা এবং কৃষকদের অভিযোগ, ছেড়ে রাখা এসব পশু তাদের ফসলের ক্ষতি করছিল। বার বার বলা সত্ত্বেও সেগুলোর ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি স্থানীয় প্রশাসন। এমনকি সেগুলোকে গোশালায় রাখারও ব্যবস্থা করা হয়নি। তার প্রতিবাদেই এই কাজ করেছেন বলে জানিয়েছেন তারা।

cow in marketমার্কেটের একটি দোকানে গরুর অবাধ বিচরণ

এ ব্যাপারে পৌরসভার প্রধান রামভান সিংহ জানিয়েছেন, এলাকাবাসী প্রায় ৮০০ গবাদি পশু ধরে এনে পৌরসভার মাঠে রেখে গিয়েছেন। তারপর থেকে সেখানেই রয়েছে পশুগুলো। ইতোমধ্যে একটি গোশালা তৈরি করা হয়েছে উল্লেখ করে রামভান বলেন, তবে পৌরসভা এখনও সেটি হাতে পায়নি। বিষয়টি সমাধানের জন্য একটি বৈঠকও ডেকেছেন জেলাশাসক।

গবাদি পশু উৎপাদনের দিক থেকে ভারত বিশ্বের অন্যতম। কিন্তু দেশটিতে নরেন্দ্র মোদির ক্ষমতায় আসার পর থেকে গরু সুরক্ষায় একাধিক আইন প্রণয়ন করা হয়। এসব আইনের কারণে কোনো পর্যায়েই এসব গরুকে জবাই করা বা কসাইয়ের কাছে প্রদান করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে যখন গরু থেকে বাচ্চা ও দুধ পাওয়া বন্ধ হয়ে যায়, তখন এগুলোকে রাস্তায় ছেড়ে দেয়া ছাড়া আর কোনো উপায় থাকে না গরীব চাষীদের।

আবার সরকারের পক্ষ থেকে গোশালা নির্মাণের কথা বলা হলেও প্রয়োজনের তুলনায় সেটা অতি সামান্য। সে কারণে প্রতিবছর বেওয়ারিশ বা লা-ওয়ারিশ এই বহরে যুক্ত হয় হাজার হাজার গরু। এসব গরু গ্রাম পর্যায়ে যেমন ফসলের ক্ষতি করে, তেমনি শহরে এসে স্বাভাবিক কার্যক্রমে ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে। ভারতের অর্থনীতিবিদরা বলছেন, এমনটা চলতে থাকলে আগামীতে দেশের প্রতিরক্ষার চেয়ে গরু রক্ষায় বেশি অর্থ ব্যয় করতে হবে।