advertisement
আপনি পড়ছেন

ইসলামিক আমিরাত আফগানিস্তানের প্রশাসন নাগরিকদের ব্যক্তিগত গোপনীয়তা বজায় রাখতে সদস্যদের প্রতি তার আদেশ পুনর্ব্যক্ত করেছে। সরকারি বাহিনীর সদস্যরা সাধারণ নাগরিকদের ফোন পরীক্ষা এবং বাড়িতে বাড়িতে অনুসন্ধান চালাচ্ছে- এমন অসংখ্য অভিযোগের পর তালেবান সরকারের পক্ষ থেকে এ আদেশ পুনর্ব্যক্ত করা হয়।

afghan ministryনীতি-নৈতিকতা মন্ত্রণালয়

তালেবান সরকারের নীতি-নৈতিকতা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, ওয়ারেন্ট ছাড়া মানুষের ব্যক্তিগত গোপনীয়তা লঙ্ঘন নিষিদ্ধ। বিবৃতিতে পাঁচটি পয়েন্ট উল্লেখ করে এ ব্যপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মোহাম্মদ সাদিক আকিফ বলেন, অন্যের গোপনীয়তা লঙ্ঘন করার অধিকার কারো নেই। তাদের ফোন ও অন্যান্য ইলেকট্রনিক ডিভাইসের মধ্যেও আড়ি পাতা উচিত নয়। বাসস্থান, দোকান ও হোটেলের তদন্ত আইনি নথির ভিত্তিতেই হওয়া উচিত।

taliban forceতালেবানের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী

ইসলামি স্কলাররা তাদের মন্তব্যে বলেন, মানুষের ব্যক্তিগত গোপনীয়তা লঙ্ঘন ইসলামে নিষিদ্ধ। আব্দুর রহমান আবিদ নামে একজন বিজ্ঞ আলেম বলেন, যেহেতু দেশে ইসলামিক সরকার রয়েছে, সে কারণেই বলছি, জনগণের গোপনীয়তা লঙ্ঘন করা নিষিদ্ধ। দেশের পুরুষ ও নারীরা এই ধরনের কর্মকাণ্ডে বিরক্ত হচ্ছেন।

আইনি বিশ্লেষকরাও মনে করেন, মানুষের গোপনীয়তা লঙ্ঘন করা অপরাধ। সুবহানাল্লাহ মুসবাহ নামের একজন আইনজীবী বলেন, নিরাপদ পরিবেশ আফগান নাগরিকদের অন্যতম প্রধান অধিকার। বিষয়টি সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে এবং শরিয়া ও ইসলামী আইন দ্বারা সমর্থিত। যখনই কেউ অন্যের গোপনীয়তা লঙ্ঘন করে, তাকে আইনি নীতির ভিত্তিতে বিচার করা হবে এবং শাস্তি দেওয়া হবে।

কাবুলের বাসিন্দারা নীতি-নৈতিকতা মন্ত্রণালয়কে প্রকৃত অর্থেই এসব বিষয় বাস্তবায়নের আহ্বান জানিয়েছেন। মোহাম্মদ জাভেদ সিকান্দার নামের এক ব্যক্তি বলেন, অনুমতি ছাড়া বাড়িঘর তল্লাশি করা উচিত নয়। এটি একটি ভালো পদক্ষেপ এবং আমরা এর প্রশংসা করি।

তাজ মোহাম্মদ সিকান্দার নামের কাবুলের আরেক বাসিন্দা বলেন, যাদেরকে এভাবে আটক করে ছেড়ে দেয়া হয়েছে, জোর করে যদি তাদের কাছ থেকে কোনো সাক্ষ্য নেয়া হয় তাহলে সেটাও উচিত হয়নি। কারণ এটি কোনো আইন বা শরিয়া দ্বারা অনুমোদিত নয়।

তালেবান সরকারের ক্ষমতা গ্রহণের পর সংবিধান ও আইনি প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম স্থগিত করা হয়। আলেমরা ইসলামী বিধিবিধান উল্লেখপূর্বক জনসাধারণকে বিরক্ত করে, এমন অপরাধীদের বিচারের জন্য ইসলামী আমিরাতের প্রতি আহ্বান জানান।