advertisement
আপনি পড়ছেন

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান অভিযোগ করে বলেছেন, একটি যৌথ অভিবাসন নীতি প্রতিষ্ঠা করা, জেনোফোবিয়া বা বিদেশি-ভীতি, এবং ইসলাম ফোবিয়া বা ইসলাম-ভীতির মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোকে একপাশে সরিয়ে রেখেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন, ইইউ। এসব বিষয়ে উল্লেখযোগ্য কোনো পদক্ষেপ নেয়নি তারা।

turkey president recep tayyip erdogan 1তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান

তিনি বলেন, এই ধরনের সমস্যার ব্যাপারে যাদের সুনির্দিষ্ট দৃষ্টিভঙ্গি আছে, এমন যে কেউ স্বীকার করে যে, তুরস্ক এমন একটি দেশ- যা সমস্যাগুলো কাটিয়ে উঠার ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ দেশ, যেগুলো মোকাবেলা করছে ইইউ।

ইইউ-এর সদস্য হওয়ার ক্ষেত্রে একটি প্রার্থী দেশ তুরস্ক। সেই দেশটির প্রেসিডেন্ট হিসেবে এরদোয়ান বলেন, তুরস্ক এই ব্লকের (ইইউ) সাথে সরবরাহ চেইন, অভিবাসন, প্রতিরক্ষা, জেনোফোবিয়া এবং ইসলাম ফোবিয়া, স্বাস্থ্য এবং জ্বালানি বিষয়ে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, তুরস্ক একটি সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে ভূমিকা পালন করে থাকে। তার দেশের সাথে ইইউয়ের সম্পর্ক অবশ্যই এগিয়ে যেতে হবে।

ইইউ সদস্য দেশগুলোর রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গে বার্ষিক বৈঠকে বৃহস্পতিবার এরদোয়ান বলেন, নতুন বছরে ইউরোপীয় ইউনিয়নের উচিত হবে তুরস্কের সাথে তার ‘অদূরদর্শিতা’ দূরে সরিয়ে রাখা এবং আঙ্কারার সাথে সম্পর্ক উন্নত করার জন্য আরও সাহসিকতার সাথে কাজ করা।

ব্লকের মধ্যে সংহতির অজুহাত দেখিয়ে ইইউ ও তুরস্কের মধ্যকার সম্পর্কে কুঠারাঘাত করা হচ্ছে অভিযোগ করে এরদোয়ান বলেন, ইইউকে অবশ্যই এই ধরনের পদ্ধতির বিরুদ্ধে কাজ করতে হবে। কিছু সদস্য দেশের উচিত হবে ইউনিয়নের করিডোরে থেকে তুরস্কের সাথে তাদের সমস্যা সমাধানের পদ্ধতি ত্যাগ করা।

তিনি বলেন, তুরস্ক একটি সংলাপ এবং একটি কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার বিষয় নিয়ে কাজ করেছে৷ উচ্চ পর্যায়ের সফর এবং আলোচনার পাশাপাশি আমরা জলবায়ু পরিবর্তন, নিরাপত্তা, অভিবাসন এবং স্বাস্থ্যসেবা সংক্রান্ত উচ্চ পর্যায়ের সংলাপেও অংশ নিয়েছি।

তবে তুরস্কের এসব ইতিবাচক পদক্ষেপ সত্ত্বেও ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছ থেকে আমরা যে প্রতিক্রিয়া আশা করেছিলাম, তা পূরণ করা হয়নি, বলেন প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান।