advertisement
আপনি পড়ছেন

কোভিড-১৯ ঝুঁকির মধ্যে স্কুলের ফেরার নির্দেশনার প্রতিবাদে শিকাগো পাবলিক স্কুলের (সিপিএস) হাজার হাজার শিক্ষার্থী বিক্ষোভ করেছে। শিকাগোর ডেমোক্র্যাটিক মেয়র লরি লাইটফুট ১২ জানুয়ারি শিক্ষার্থীদের স্কুলে ফেরার নির্দেশনা দেন। এর প্রতিবাদে ৩০টিরও বেশি স্কুলে বিক্ষোভ হয়েছে। প্রতিবাদে উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রদের পাশাপাশি সপ্তম এবং অষ্টম শ্রেণির ছাত্ররাও অংশ নেয়। ডব্লিউডব্লিউএস নিউজ।

thousands of chicago students walk out to protest unsafe return to schoolsশিকাগো পাবলিক স্কুলের (সিপিএস) হাজার হাজার শিক্ষার্থী বিক্ষোভ করেছে

ক্যালিফোর্নিয়া, নিউ ইয়র্ক এবং ম্যাসাচুসেটসের পর শিকাগোর শিক্ষার্থীরা একই দাবি জানাল। চলতি সপ্তাহে একই প্রতিবাদ জানাতে শিক্ষার্থীরা ওই তিন শহরে সড়কে নামে। এতে মহামারির ব্যাপক বিস্তার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

খবরে বলা হচ্ছে, যেহেতু বাইডেন প্রশাসন দাবি করছে, প্রত্যেকে ভাইরাস নিয়ে বেঁচে আছে। সুতরাং অসুস্থ কর্মীদের কাজ করতে ও শিশুদের স্কুলে যেতে বাধ্য করা ইতিবাচক হতে পারে না। এজন্য সামাজিক ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ছে। সিপিএস ছাত্ররা স্লোগান দেয়, ‘লরি লাইটফুট নরকের মতো দোষী’।

ইলিনয় ডিপার্টমেন্ট অফ পাবলিক হেলথের কন্টাক্ট ট্রেসিং ডেটা অনুসারে স্কুলগুলো বর্তমানে ভাইরাসের বিস্তারের শীর্ষ উৎস। আক্রান্তদের ৪১ শতাংশেরও বেশি স্কুলের সাথে যুক্ত। শিকাগোতে প্রতিদিন ১৯৬ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হচ্ছে ও ২১ জন মারা যাচ্ছেন। আক্রান্তের হার ১৭.৭ শতাংশ।

শহর জুড়ে থাকা স্কুলগুলোর শত শত শিক্ষার্থী প্রতিবাদ করতে সিপিএস সদর দফতরে জড়ো হয়। এই প্রতিবাদে শামিল হয়েছেন শিক্ষক এবং অভিভাবকরাও। যারা সিপিএস এবং শিকাগো শিক্ষক ইউনিয়নের মধ্যেও স্কুল খোলার বিরোধিতা করেছিলেন।

হাই স্কুল থেকে বেরিয়ে আসা একজন ছাত্র বলছেন, আমরা চাই আমাদের প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর শোনা হউক। আমরা বুঝি শিক্ষকরা আমাদের পক্ষে আছেন, আমরা তাদের সমর্থন করতে চাই। আরেক শিক্ষার্থী বলেন, অনেক মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ছে। অনেক মানুষ মারা যাচ্ছে।

রবার্তো ক্লেমেন্ট কমিউনিটি একাডেমীর এক ছাত্র বলছেন, আমি মনে করি না আমাদের স্কুলে থাকা উচিত। সেখানে অনেক মানুষ অসুস্থ এবং অনেক শিক্ষক অনুপস্থিত। আমাদের বাড়িতে থাকা উচিত এবং ক্লাস-পরীক্ষা অনলাইনে করা উচিত। এটাই আমাদের জন্য ভালো হবে।

চলতি সপ্তাহে শিকাগো শহরের ২৫ হাজার স্কুলশিক্ষক অনলাইননে পড়ানোর পক্ষে অপ্রতিরোধ্যভাবে ভোট দিয়েছেন।

জন মার্শাল হারলান কমিউনিটি একাডেমির একজন সিনিয়র বলেন, আমাদের মূল উদ্দেশ্য হল নিরাপদ স্কুলের দাবি। নিরাপত্তা ছাড়াই স্কুলে ফিরে যেতে বলা হয়েছে। এটা ভণ্ডামি ও অন্যায্য।