advertisement
আপনি পড়ছেন

ইউক্রেন ইস্যুতে রাশিয়ার সঙ্গে অচলাবস্থা চলছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোর। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা প্রায় যুদ্ধাবস্থায় পৌঁছেছে, যার অবনমনে ফের আলোচনার টেবিলে বসেছেন ওয়াশিংটন ও মস্কোর কূটনীতিকরা। এর আগেও সম্প্রতি উভয় দেশ আলোচনায় বসেছিল, তা কার্যত ব্যর্থ হয়।

anthony blinken sergei lavrovঅ্যান্টনি ব্লিনকেন ও সের্গেই ল্যাভরভ

যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী আজ শুক্রবার বৈঠকে বসেছেন সুইজারল্যান্ডের জেনেভায়। যেকোনো সময় ইউক্রেনে রুশ সেনারা আগ্রাসন চালাতে পারে- এমন শঙ্কা প্রকাশ করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন। ফলে জেনেভায় বসে এই সংকটের সমাধান হবে বলে মনে করেন তিনি।

বৈঠকের উদ্বোধনী বক্তব্যে ব্লিনকেন বলেন, গুরুত্বপূর্ণ সময়ে উপনীত হয়েছি আমরা, ফলে আলোচনায় সব সমাধান হবে তা কেউই আশা করছে না। তারপরেও কূটনীতি এখনো কার্যকর পদ্ধতি কিনা, সেটি আমরা পরীক্ষা করে দেখতে চাই।

map ukraine russiaইউক্রেন ও রাশিয়ার মানচিত্র

তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে আরো বলেন, ইউক্রেনে আগ্রাসন চালালে রাশিয়ার বিরুদ্ধে পশ্চিমা দেশগুলো একযোগে ভয়াবহ প্রতিক্রিয়া দেখাবে। এ ছাড়া অবিলম্বে মার্কিন নাগরিক পল হেলান ও ট্রেভর রিডের মুক্তি দেয়ার দাবি করেছে ওয়াশিংটন।

রয়টার্স জানায়, এর বিপরীতে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বলেছেন, সুস্পষ্ট প্রস্তাব তুলে ধরেছে মস্কো, সেগুলোর স্পষ্ট উত্তর চাই। পশ্চিমাদের স্পষ্ট কিছু শর্ত দেয়ার কথা রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনও জানিয়েছেন। তিনি বলেন, মস্কো তার নিরাপত্তার ব্যাপারে উদ্বিগ্ন।

মস্কোর দাবি হলো- প্রতিবেশী ইউক্রেনকে ন্যাটোতে অন্তর্ভুক্ত করা যাবে না, পূর্ব ইউরোপে সংস্থাটির সকল কার্যক্রম এবং অস্ত্র পাঠানো বন্ধ করতে হবে। এ নিয়ে আগামী সপ্তাহের মধ্যে ন্যাটোকে সোজা উত্তর দিতে হবে।