advertisement
আপনি পড়ছেন

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি একদিনের সফরে নেপাল গেছেন। সেখানে তিনি নেপালের প্রধানমন্ত্রী শের বাহাদুর দিউবার সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের পাশাপাশি কয়েকটি কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছেন। দুই প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে ভারত ও নেপাল বিদ্যুৎ উৎপাদনসহ বিভিন্ন বিষয়ে ছয়টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে।

modi nepal twsdভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও নেপালের প্রধানমন্ত্রী শের বাহাদুর দিউবা

ভারতের প্রধানমন্ত্রী উত্তর প্রদেশের কুশিনগর থেকে সকালে নেপালের লুম্বিনীতে যান। সেখানে নেপালের প্রধানমন্ত্রী তাকে স্বাগত জানান। এরপর লুম্বিনীতে অবস্থিত মহাদেবী মন্দিরে প্রার্থনা করেন নরেন্দ্র মোদি। এ সময় শের বাহাদুর দিউবা ও তার স্ত্রী ড. আরজু রানা দিউবা তার সঙ্গে ছিলেন।

দুই প্রধানমন্ত্রী লুম্বিনীর মন্দির-সংলগ্ন অশোক স্তম্ভে প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করেন। খ্রিষ্টপূর্ব ২৪৯ সালে সম্রাট অশোকের স্থাপিত এ খুঁটি লুম্বিনীতে মহামতি গৌতম বুদ্ধের জন্মের স্বপক্ষে সবচেয়ে পুরনো লিখিত প্রমাণ হিসেবে বিবেচিত।

india nepal flagভারত ও নেপালের পতাকা

২০১৪ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর নরেন্দ্র মোদির এটা পঞ্চমবারের মতো নেপাল সফর। তবে ২০২০ সালে দুই দেশের সীমান্ত-বিরোধের পর এটা তার প্রথম সফর। সম্পর্কোন্নয়নের বিশেষ লক্ষ্য নিয়েই ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী বৌদ্ধ পুর্ণিমার দিনটিকে লুম্বিনী সফরের সময় হিসেবে বেছে নিয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নরেন্দ্র মোদির সফর উপলক্ষে ভারত ও নেপাল অরুণ-৪ জলবিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণসহ ছয়টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে। নেপালের পূর্বাঞ্চলীয় সাঙ্খুয়াসভা জেলায় অবস্থিত অরুণ-৪ জলবিদ্যুৎ প্রকল্প যৌথভাবে নির্মাণ করবে নেপাল ইলেকট্রিসিটি অথোরিটি (এনইএ), ভারত সরকার এবং ভারতের হিমাচল প্রদেশ রাজ্য সরকারের প্রতিষ্ঠান সাটলেজ জলবিদ্যুৎ নিগম (এসজেভিএন)। ৭ হাজার ৯১২ কোটি রুপির প্রকল্পটি ৬৯৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে। এর মধ্যে নেপাল পাবে ১৫২ মেগাওয়াট।

এছাড়া লুম্বিনী যাদুঘর নির্মাণ, লুম্বিনী বুড্ডিস্ট ইউনিভার্সিটিতে ড. আম্বেদকর চেয়ার প্রতিষ্ঠাসহ কয়েকটি বিষয়ে দুই দেশের চুক্তি হয়েছে।