advertisement
আপনি পড়ছেন

ইউক্রেনে হামলার প্রেক্ষিতে রাশিয়ার তেল-গ্যাসের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে পশ্চিমা বিশ্ব। কিন্তু বিকল্প না পাওয়ায় নিজেরাই সে নিষেধাজ্ঞা পুরোপুরি কার্যকর করতে পারছে না। এমন অবস্থায় কিছুটা হলেও রাশিয়ার বিকল্প হয়ে উঠার ইঙ্গিত দিচ্ছে কাতার। গতকাল বার্লিন ঘোষণা দিয়েছে, জার্মানির জ্বালানি খাতে এবার কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করবে কাতার। খবর আনাদোলু।

qatar amir and german chancellorজার্মান চ্যান্সেলর ও কাতারের আমির

জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ স্কোলজ বলেছেন, কাতার এখন থেকে জার্মানির জ্বালানি কৌশল-পরিকল্পনায় ‘কেন্দ্রীয় ভূমিকা’ পালন করবে। একই সাথে দুই দেশ তাদের অর্থনৈতিক সম্পর্ক এবং জ্বালানি সহযোগিতাও বাড়াবে। গতকাল শুক্রবার জার্মানির বার্লিনে কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল-থানির সাথে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে বক্তৃতাকালে জার্মান চ্যান্সেলর এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, জার্মানি তার জ্বালানি অবকাঠামো আরো উন্নত করবে যাতে জাহাজের মাধ্যমেই পর্যাপ্ত পরিমাণে তরল প্রাকৃতিক গ্যাস আমদানি করা যায়। ইউক্রেনের বিরুদ্ধে মস্কোর হামলার প্রতিক্রিয়ায় জ্বালানি খাতে রুশ নির্ভরতা শেষ করার ক্ষেত্রে পরিকল্পনার অংশ হিসেবে জার্মানি এ পদক্ষেপ নিচ্ছে বলে জানান স্কোলজ।

qatar lngএনএসজিখাতে ব্যাপক বিনিয়োগ করেছে কাতার

সংবাদ সম্মেলনে কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল-থানি বলেন, তার দেশ সম্প্রতি তরল প্রাকৃতিক গ্যাসের (এলএনজি) উপর বড় বিনিয়োগ করেছে এবং তারা জ্বালানি বাজারের স্থিতিশীলতায় অবদান রাখতে পারলে খুশি হবে। আগামী বছরগুলোতে কাতার তার এলএনজি উৎপাদন আরো বাড়াবে এবং তার দেশ ইউরোপে সরবরাহ বৃদ্ধি করার অবস্থানে থাকবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

বর্তমান পরিস্থিতির কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করে কাতারের আমির বলেন, আমরা ইউরোপে জ্বালানি সুরক্ষার জন্য সর্বোচ্চ দেওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছি। এমনকি এই সময়েও আমরা সে সরবরাহ নিশ্চিত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।