advertisement
আপনি পড়ছেন

ইসরায়েলি কারাগার থেকে পালিয়ে যাওয়া ছয় ফিলিস্তিনি বন্দিকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন ইসরায়েলের একটি আদালত। সর্বোচ্চ নিরাপত্তা সংবলিত একটি কারাগার থেকে সুড়ঙ্গ তৈরির মাধ্যমে পালিয়ে যাওয়ার অপরাধে গতকাল রোববার তাদের এ সাজা দেয়া হয়। খবর আনাদোলু।

six palestinian prisoners who escaped from israels gilboa prisonছয় বন্দীর স্বজনদের বিক্ষোভ

প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন (পিএলও) পরিচালিত বন্দী ও সাবেক বন্দী বিষয়ক একটি কমিশন এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। তারা বলেছে, আদালত ছয় বন্দীকে পাঁচ হাজার শেকেল (ইসরায়েলি মুদ্রা) বা দেড় হাজার ডলার জরিমানা করেছে। পলাতক বন্দীদের সাহায্য করার অভিযোগে অন্য পাঁচ বন্দীকে অতিরিক্ত চার বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে উত্তর ইসরায়েলের উচ্চ-নিরাপত্তাযুক্ত গিলবোয়া কারাগারের সেল থেকে ছয় ফিলিস্তিনি বন্দী পালিয়ে যায়। ছয়জনের মধ্যে পাঁচজন ইসলামিক জিহাদ গ্রুপের সদস্য, বাকি একজন ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের ফাতাহ আন্দোলনের সদস্য।

tunnelএই সুড়ঙ্গ দিয়েই বন্দীরা পালিয়ে যায়

বিভিন্ন প্রতিবেদনে জানা যায়, পলাতকরা রান্নাঘরের পাত্র ব্যবহার করে তাদের রুমের মেঝে দিয়ে একটি সুড়ঙ্গ খনন করে। কয়েকমাস ধরে তাদের এ কাজ চললেও বিষয়টি কারারক্ষীদের চোখ এড়িয়ে যায়। এরপর তারা কারাগারের সামনের একটি গর্ত দিয়ে বেরিয়ে এসে ঘুমন্ত কারারক্ষীকে পাশ কাটিয়ে চলে যেতে সক্ষম হয়।

অন্য আরেকটি সূত্র জানায়, বন্দীরা তাদের জেলের কামরার টয়লেটের নিচে একটি ধাতব প্লেট খুলে ফেলতে এবং স্যুয়ারেজ সিস্টেমের মাধ্যমে পালাতে সক্ষম হয়েছিল। কর্মকর্তারা জানান, পালিয়ে যাওয়া ব্যক্তিরা দৃশ্যত বাইরে থেকে সাহায্য পেয়েছে এবং তারা পোশাক পরিবর্তন করতে পেরেছিল এবং একটি গাড়ি তাদের জন্য অপেক্ষা করছিল।

তাদের পালিয়ে যাওয়ার বিষয়টিতে ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ে। কারাগারের নিরাপত্তা নিয়েও অনেক প্রশ্ন ওঠে। সরকার এ বিষয়ে তদন্তে নামতে বাধ্য হয়। অবশ্য কয়েকদিন পর ওই ছয় বন্দীকে বিভিন্ন স্থান থেকে পুনরায় আটক করা হয়।