advertisement
আপনি পড়ছেন

অস্ট্রেলিয়ার নতুন সরকার চীনকে বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার নতুন প্রধানমন্ত্রী অ্যালবেনিজ বলেন, অস্ট্রেলিয়ার সাথে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক পুনঃস্থাপন করতে চাইলে চীনকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে হবে। নিষেধাজ্ঞা আরোপের কোনো যৌক্তিকতাও নেই বলে মনে করেন অ্যালবানিজ। এএফপি, আশাহি শিম্বন।

anthony albanese twsdঅস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী অ্যালবেনিজ

নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর অ্যান্টনি অ্যালবানিজকে অভিনন্দন জানিয়ে চিঠি দেন চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াং। এ ঘটনার পর থেকে মনে করা হচ্ছে, অস্ট্রেলিয়ার ওপর বেইজিংয়ের আরোপ করা দুই বছরের নিষেধাজ্ঞা শিথিল হতে পারে। চীনা প্রধানমন্ত্রী নিজেই বলেছেন, দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের উন্নয়নে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে কাজ করতে প্রস্তুত চীন।

চীন সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কয়লা, ওয়াইন, বার্লি, গরুর মাংস এবং সামুদ্রিক খাবারসহ বিলিয়ন ডলার মূল্যের অস্ট্রেলিয়ান রপ্তানির ওপর একাধিক বাণিজ্যিক নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। বিষয়টি কোয়াড শীর্ষ সম্মেলনে তুলে ধরেন অস্ট্রেলিয়ার নতুন প্রধানমন্ত্রী অ্যালবানিজ। সম্মেলনে যোগ দেওয়া অন্য দেশগুলো হল- জাপান, ভারত ও যুক্তরাষ্ট্র।

chinese premier li keqiang aseanচীনের প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াং

অস্ট্রেলিয়ার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আমরা অবশ্যই চীনের বাণিজ্যিক নিষেধাজ্ঞাগুলো আর দেখতে চাই না। এটি অস্ট্রেলিয়ার অর্থনীতির ক্ষতি করছে। এই নিষেধাজ্ঞা চীনে বসবাসকারী অস্ট্রেলিয়ান কিছু কর্মকর্তার জীবন আরও কঠিন করে তুলছে।

এদিকে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই শিগগির সলোমন দ্বীপপুঞ্জ, কিরিবাতি, সামোয়া, ফিজি, টোঙ্গা, ভানুয়াতু, পাপুয়া নিউ গিনি এবং পূর্ব তিমুরে ১০ দিনের সফরে যাবেন। অপরদিকে অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী পেনি ওং আগামীকাল বৃহস্পতিবার ফিজি সফরে যাবেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অস্ট্রেলিয়ার নতুন সরকার দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরে চীনা প্রভাব মোকাবেলায় তাড়াহুড়ো করছে।

অ্যালবানিজের অভিযোগ, আগের প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে বিভ্রান্ত করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের সাথে পারমাণবিক সাবমেরিন চুক্তির ব্যাপারটি লেবার পার্টির কাছে গোপন করেছিলেন। ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোনও মরিসনের বিরুদ্ধে মিথ্যা বলার অভিযোগ এনেছিলেন। কারণ কোনো সতর্কতা দেওয়া ছাড়াই ফ্রান্সের সাথে সাবমেরিন চুক্তি বাতিল করেন মরিসন।