advertisement
আপনি পড়ছেন

ভারতে আগামী ১৮ জুলাই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। এ উপলক্ষে প্রার্থী দিয়েছে ক্ষমতাসীন বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ। অন্যদিকে বিজেপি বিরোধীরা প্রার্থী দিয়েছেন সম্মিলিতভাবে।

draupadi murmu and yashwant sharmaদ্রৌপদী মুর্মু ও যশোবন্ত সিনহা

ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, বিজেপির পার্লামেন্টারিয়াল বোর্ড রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের জন্য ক্ষমতাসীন এনডিএ'র প্রার্থী হিসাবে ওড়িশার দলের উপজাতীয় নেতা এবং ঝাড়খণ্ডের সাবেক রাজ্যপাল দ্রৌপদী মুর্মুর নাম ঘোষণা করেছে। মোটামুটি গভীর রাতেই তারা নিজেদের প্রার্থীর নাম ঘোষণা করে।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আশা প্রকাশ করেন, দ্রৌপদী একজন মহান প্রেসিডেন্ট হবেন। তার প্রশংসা করে মোদি এক টুইটে লেখেন, দ্রৌপদী সমাজের সেবায় দরিদ্র ও প্রান্তিকদের ক্ষমতায়নের জন্য তার জীবন উৎসর্গ করেছেন। অন্যদিকে তার একটি সমৃদ্ধ প্রশাসনিক অভিজ্ঞতা রয়েছে। সব মিলিয়ে আমি আত্মবিশ্বাসী, তিনি আমাদের জাতির জন্য একজন মহান প্রেসিডেন্ট হবেন।

india president ramnat kovindবর্তমান প্রেসিডেন্ট রামনাথ কোবিন্দের মেয়াদ শেষ হবে ২৪ জুলাই

প্রেসিডেন্ট হিসেবে তার নাম প্রকাশ করার সাথে সাথে অন্য বিজেপি নেতারাও মুর্মুর প্রশংসায় মাতেন। বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডা দ্রৌপদীর প্রার্থিতা ঘোষণা করার সময় বলেন, প্রথমবারের মতো একজন নারী উপজাতি প্রার্থীকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেন, বিজেপি জোটের এই সিদ্ধান্ত আদিবাসীদের গর্বকে নতুন উচ্চতায় উন্নীত করবে।

এদিকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিরোধীদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। এ ইস্যুতে গত ১৫ মে দিল্লিতে বৈঠকে বসেছিলেন কংগ্রেসসহ ১৮ রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিরা। সেই বৈঠকে সর্বসম্মতিক্রমে প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিসেবে ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টির শারদ পওয়ারের নাম প্রস্তাব করা হয়। কিন্তু তিনি রাজি হননি।

পরে বিরোধী প্রার্থী হিসেবে ন্যাশনাল কনফারেন্সের (এনসি) প্রধান ফারুখ আবদুল্লাহ ও মহাত্মা গান্ধীর নাতি গোপালকৃষ্ণ গান্ধীর নাম প্রস্তাব করা হয়, তারাও এ প্রস্তাব বিনয়ের সাথে ফিরিয়ে দেন। এর পরের অপশন হিসেবে শোনা যাচ্ছিল তৃণমূলের সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি যশবন্ত সিনহার নাম। শেষ পর্যন্ত এ নামটিই প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে টিকে যায়। গতকাল আনুষ্ঠানিকভাবে যশবন্ত সিনহার নাম ঘোষণা করা হয়।

উল্লেখ্য, ভারতের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের তফসিলে বলা হয়, প্রার্থী হতে ২৯ জুন পর্যন্ত মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া যাবে। লোকসভা, রাজ্যসভা ও সব রাজ্যের বিধানসভার আইনপ্রণেতাদের অংশগ্রহণে ভোটগ্রহণ হবে ১৮ জুলাই। এরপর ২১ জুলাই ভোট গণনা করা হবে।

বর্তমান প্রেসিডেন্ট রামনাথ কোবিন্দের মেয়াদ শেষ হবে ২৪ জুলাই।