advertisement
আপনি পড়ছেন

যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট গর্ভপাতের সাংবিধানিক অধিকার বাতিল করে নতুন যে রায় দিয়েছে তাকে স্বাগত জানিয়েছে ভ্যাটিকান। গত শুক্রবার ঘোষিত এই রায়ের ব্যাপারে পন্টিফিকাল একাডেমি ফর লাইফের এক বিবৃতিতে বলা হয়, দীর্ঘ গণতান্ত্রিক ঐতিহ্যের একটি বৃহৎ দেশ এই ইস্যুতে তার অবস্থান পরিবর্তন করেছে, তাও পুরো বিশ্বকে চ্যালেঞ্জ করে। খবর আনাদোলু।

protest infront of us scভ্যাটিকান

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, মানব জীবনের সুরক্ষা ও প্রতিরক্ষা এমন একটি বিষয় নয়, যা ব্যক্তিগত অধিকারের অনুশীলনের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকতে পারে না। এটি বিস্তৃত সামাজিক তাৎপর্যের একটি বিষয়। এ কারণে সরকারের উচিত আদর্শগত অবস্থানে আটকে না থেকে জীবনসহায়ক নীতি প্রণয়ন করা।

গত শুক্রবার ৬-৩ ভোটে মার্কিন সুপ্রিম কোর্ট ১৯৭৩ সালের মামলাটি বাতিল করে দেয়, যা প্রায় ৫০ বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রে গর্ভপাতের সাংবিধানিক অধিকারের নিশ্চয়তা দিয়ে আসছিল।

protest infront of us scমার্কিন সুপ্রিম কোর্টের বাইরে বিক্ষোভ

মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের এই রায়ের ফলে দেশের প্রায় অর্ধেক রাজ্যে গর্ভপাত নিষিদ্ধ হবে বলে আশা করা হচ্ছে। তবে দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এই সিদ্ধান্তের নিন্দা করে বলেছেন, এটি যুক্তরাষ্ট্রকে ১৫০ বছর পিছিয়ে নিয়ে গেছে।

এক সংবাদ সম্মেলনে বাইডেন বলেন, আদালত গর্ভপাতকে অপরাধমূলক করার যে রায় দিয়েছে, তা দেশকে অষ্টাদশ শতাব্দীতে ফিরিয়ে নিয়ে গেছে। আক্ষরিক অর্থেই আদালত আমেরিকাকে অন্তত ১৫০ বছর পেছনে নিয়ে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, সব মিলিয়ে এটি দেশের জন্য একটি দুঃখজনক দিন। তবে এর অর্থ এই নয় যে লড়াই শেষ হয়ে গেছে। তিনি ফেডারেল আইন হিসাবে গর্ভপাতের অধিকার পুনরুদ্ধার করার জন্য কংগ্রেসের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

মার্কিন আদালতের এই রায়ের ব্যাপারে দেশটির অনেকে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে। এছাড়া গর্ভপাতের পক্ষের লোকজন রায়ের প্রতিবাদে আদালতকে কেন্দ্র করে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে।