advertisement
আপনি পড়ছেন

মার্কিন সেন্ট্রাল কমান্ড, সেন্টকমে ইসরায়েলের যোগদানের বিরুদ্ধে কঠোর সতর্কতা দিয়েছে ইরান। দেশটির সশস্ত্র বাহিনীর চিফ অফ স্টাফ মেজর জেনারেল মোহাম্মদ বাঘেরি বলেছেন, মার্কিন সেন্টকমে ইসরায়েলের সদস্যপদ, সরঞ্জাম মোতায়েন এবং মহড়ায় অংশ নেওয়ার পদক্ষেপ এই অঞ্চলের জন্য হুমকি। আমরা এটা সহ্য করব না এবং অবশ্যই জবাব দেব। তেহরান টাইমস।

general mohammad bagheri iranমেজর জেনারেল মোহাম্মদ বাঘেরি

গতকাল সোমবার তেহরানে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর জয়েন্ট চিফ অব স্টাফের চেয়ারম্যান নাদিম রেজার সঙ্গে বৈঠকে বাঘেরি ওই মন্তব্য করেন। ইরানের সামরিক প্রধান ইসরায়েলি শাসনকে এই অঞ্চলে অস্থিতিশীলতার কারণ হিসাবে চিহ্নিত করেছেন।

ইরানি জেনারেল উল্লেখ করেন, ইসরায়েলি সরকার তার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে হস্তক্ষেপমূলক কার্যক্রমের লক্ষ্য অর্জনের জন্য এই অঞ্চলের দেশগুলোর সাথে সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করছে। সিরিয়া-ইরাকে সন্ত্রাসী ও তাকফিরি গোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠার নেপথ্যেও রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইসরায়েলি শাসকগোষ্ঠী।

iran pakistanইরান ও পাকিস্তান সম্পর্ক

ইরান-পাকিস্তান সামরিক নিরাপত্তা গুরুত্বপূর্ণ: ইরানের শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তা বাঘেরি সামরিক ক্ষেত্রে ইরান ও পাকিস্তানের মধ্যে ক্রমবর্ধমান সুসম্পর্কের প্রশংসা করেছেন। তিনি বলেন, আমরা বিশ্বাস করি, দুই দেশের উল্লেখযোগ্য সম্ভাবনা রয়েছে। গত ৫ বছরে ইরান ও পাকিস্তানের সামরিক কর্মকর্তাদের মধ্যে অনেক সক্রিয় কার্যক্রম লক্ষ্য করা গেছে। বিশেষ করে তেহরান ও ইসলামাবাদের মধ্যে সীমান্ত নিরাপত্তার বিষয়টি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

বাঘেরি বলেন, পাকিস্তান সফরের সময় আমি দুই দেশের মধ্যে বিশেষ করে সীমান্ত নিরাপত্তার ক্ষেত্রে সাধারণ বিষয়গুলোও গুরুত্বের সাথে অনুসরণ করেছি। প্রতিবেশীদের সাথে সম্পর্কের উন্নয়নে দুদেশের দৃষ্টিভঙ্গির মিল রয়েছে। এই গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুকে রাইসি সরকার দুদেশের সম্পর্ক শক্তিশালী করার মাধ্যম হিসেবে দেখছে।

ইরান শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তা বলেন, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ইরান ও পাকিস্তানের মধ্যে সামরিক সম্পর্ক উল্লেখযোগ্যভাবে বিকশিত হয়েছে। এটি দুই দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নকে নিরাপত্তা এবং দক্ষতার দিকে পরিচালিত করেছে। ভৌগলিক অঞ্চল নিয়ে ইরান এবং পাকিস্তান খুব গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার।